kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


প্রেমের গাড়ি

বরাবরই রিমেক ছবি বানান পরিচালক রাজীব বিশ্বাস। ‘লাভ এক্সপ্রেস’ও ব্যতিক্রম নয়। তবু তিনি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন দেব ও নুসরাতকে নতুন মোড়কে হাজির করার। লিখেছেন লতিফুল হক

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



প্রেমের গাড়ি

লাল আর নীলের জার্নির গল্প। নীল খুব ঝগড়াটে, লালের সঙ্গে সব কিছু নিয়েই গোল বাধে।

এই নিয়ে ছবি। লাল দেব আর নীল নুসরাত জাহান। পরিচালক রাজীব বিশ্বাসের এযাবৎ নির্মিত প্রায় সবই দক্ষিণী ছবির রিমেক। এটাও তা-ই। অন্য ধারার কয়েকটি ছবিতে ইদানীং দেখা গেলেও নুসরাতও মূলত রিমেকেই কাজ করেছেন বেশি। তবে এবার তিনি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন এই ছবিতে নতুন কিছু পাওয়ার, ‘এটা রিমেক হলেও একেবারেই অন্যভাবে তৈরি। আমার একটা নীতি আছে, রিমেকে কাজ করলে সাধারণত আসলটা আগে আমি দেখি না। রাজীব দা [পরিচালক] নিজের কনসেপ্টমতো এটাকে ভেঙেচুরে নিয়েছেন। মূল স্টোরিলাইন ছাড়া কোনো মিলই নেই। ’

দেবের কাছেও এ ছবির গল্প বিশেষ কিছু। কারণ ছবিটা একটা রাতের ট্রেন জার্নি নিয়ে, যা ব্যক্তিগতভাবেও তাঁর বেশ পছন্দ। ‘কোনো সেট তৈরি করে নয়, ছবির পুরোটাই শুটিং হয়েছে সত্যিকারের লোকেশনে। মানুষ এই ছবির সঙ্গে রিলেট করতে পারবে। রাজীব দা দারুণ বানিয়েছেন। ’

ছবি মজার হলেও এ ছবি করতে গিয়ে যে কষ্ট হয়েছে তা কখনোই ভুলবেন না তিনি, ‘প্রায় একটানা ৪০ দিন শুটিং হয়েছে। সবটাই রাতে। ওই সময়ে আমার ইনসমনিয়া হয়ে গিয়েছিল। শুটিং শেষ হওয়ার পরও তা অনেক দিন কাটেনি। আর সত্যিকারের লোকেশনে শুটিংয়ের বড় সমস্যা হলো, সব সময়ই মানুষ ভিড় করে। সব মিলিয়ে এটা মনে রাখার মতো ছবি। ’ রাজীব বিশ্বাসের সঙ্গে এই ছবি করতে গিয়ে খানিকটা নস্টালজিয়ায়ও ভুগছেন ‘চাঁদের পাহাড়’ অভিনেতা। কারণ তাঁর প্রথম ছবি ‘দুজনে’ও ছিল একই পরিচালকের সঙ্গে। আর এই ছবিতে নুসরাতের সঙ্গে কাজ করাও দেবের জন্য বিশেষ কিছু। কারণ গত ঈদে মুক্তি পাওয়া ‘কেলোর কীর্তি’তে ছিলেন দুজনই। আবার পূজায় মুক্তির অপেক্ষায় থাকা সৃজিত মুখার্জির ‘জুলফিকার’-এও তাঁরা জুটি। সহশিল্পী হিসেবে নুসরাতকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত তিনি, ‘ও টালিউডের সবচেয়ে সুন্দরী অভিনেত্রীদের একজন। এখন নানা ধরনের ছবিতে অভিনয় করে নিজেকে পরিণত করছে। ’

ছবিতে আরো আছেন ভিক্টর ব্যানার্জি, খরাজ মুখার্জি, কাঞ্চন মল্লিক ও রুন্দ্রনীল ঘোষ। ‘লাভ এক্সপ্রেস’-এ অনেক দিন পর বাংলা ছবির গানে কণ্ঠ দিয়েছেন কুমার শানু ও শ্রেয়া ঘোষাল জুটি। ছবির সংগীত পরিচালক জিৎ গাঙ্গুলী।


মন্তব্য