kalerkantho


অন্তর্জাল থেকে

৩১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



অন্তর্জাল থেকে

ফেসবুক

 

প্রীতম আহমেদ

যখন আমার মা-বাবা আলাদা হয়ে গিয়েছিল তখন আমার বয়স চার বা পাঁচ। আমরা দুই ভাই বড় হয়েছিলাম দূরসম্পর্কের এক নানুর তত্ত্বাবধানে, তিনি বাবার ভরণ-পোষণেই আমাদের বাসায় থাকতেন।

সেই নানুর কাছে বাজার খরচের সব দিতেন বাবা। আমাদের দুই ভাইয়ের জন্য প্রতিদিন ফলমূলের সঙ্গে গরুর দুধও মাসব্যাপী দিয়ে যেত পাড়ার রাখাল। হঠাৎ একদিন বাসার কাজের খালা বলল, ‘বাবা, তোমার আব্বুকে বইল তোমার নানু তোমাদের জন্য কেনা দুধের অর্ধেক নিজে খেয়ে বাকিটার সঙ্গে পানি মিশিয়ে তারপর তোমাদের খেতে দেয়। দেখতে বেশি দেখা গেলেও দুধ আসলে অনেক কম। ’ আমি তখন নৈতিকতার তেমন কিছুই বুঝতাম না। এখন যখন আমার বন্ধুরা কোনো অল্প বাজেটের অনুষ্ঠানে বন্ধুত্বের খাতিরে অর্ধেক পয়সায় গান করায় আর বেশি বাজেটের অনুষ্ঠানে আমার চেয়েও কম পরিচিত শিল্পীকে বেশি টাকায় গাওয়ায়, তখন বুঝতে পারি, আপন বললেই কেউ আপন হয় না। কেউ কেউ শুধু নিজের সুবিধার জন্যই ‘আপন’ পরিচয় বহন করে।

টুইটার

অমিতাভ বচ্চন

গেইল যে আমার ফ্যান, জানতামই না। এ রকম ‘শান্তশিষ্ট’ ফ্যান কমই দেখেছি।

আশা করছি আজকের ভারত-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচে সে আমার দেওয়া বিশেষণটার মান রাখবে।

 

[বাসায় ক্রিস গেইলকে দাওয়াত করে খাইয়েছেন অমিতাভ বচ্চন। উপহার দিয়েছেন বই। সেই ছবি পোস্ট করে অমিতাভের টুইট। এ ছবিটিই আবার ইন্সটাগ্রামে পোস্ট করে গেইল লিখেছেন, ‘বস চেয়েছেন আজকের ম্যাচে যেন আমি সেঞ্চুরি করি এবং ভারত জয়লাভ করুক। কিন্তু আমি সেঞ্চুরির চেয়ে জয়টাই বেশি করে চাই। এই অসাধারণ মানুষটাকে সম্মান করি’

 

 

দেব

[পোষা কুকুর ‘লাকি’র সঙ্গে তোলা সেলফি পোস্ট করে দেবের টুইট]

আমাদের ‘সেলফি ডে’। যারা লাকিকে দেখতে চেয়েছে তাদের জন্য এই ছবি।

 

 

 

 

ইন্সটাগ্রাম

সোনাক্ষী সিনহা

চারদিকে নীল আর নীল।


মন্তব্য