kalerkantho


অন্তরঙ্গ পরীমণি

কাল মুক্তি পাবে মুশফিকুর রহমান গুলজারের ‘মন জানে না মনের ঠিকানা’। ছবির নায়িকা পরীমণিকে নিয়ে লিখেছেন মীর রাকিব হাসান, ছবি তুলেছেন সুমন ইসলাম আকাশ

৩১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



অন্তরঙ্গ পরীমণি

ফোন নম্বর সেভ করার সময় তিনি বলেছিলেন, ‘এই পিচ্চি, শুধু মা লিখে রাখ। কোনো নামটাম লিখবি না।’ আমি হেসে হেসে বলেছিলাম, এহ্, তুমি বলার আগেই তো আমি লিখে ফেলেছি

শুটিং চলছে ওয়াকিল আহমেদের ‘কত স্বপ্ন কত আশা’র। ‘মাত্রই কেঁদে আসলাম। ভালোমতো কাঁদতে পেরেছি, তাই ভালো লাগছে’—শুটিংয়ের ফাঁকে মেকআপ রুমে ঢুকেই বললেন পরীমণি।   প্রচণ্ড গরম। এর মধ্যে শুটিং করে হাঁপিয়ে উঠেছেন। এখানকার কাজ প্রায় শেষ। গানের শুটিংয়ের জন্য এবার যেতে হবে ঢাকার বাইরে।

সাম্প্রতিক সময়ে আর কী করলেন? “এক মাস ধরে ঢাকার বাইরে ‘অন্তর জ্বালা’র শুটিং করেছি। ছবিটিতে আমি হিন্দু মেয়ে। প্রথমবারের মতো হিন্দু মেয়ের চরিত্র করেছি। ছবির এখনো বেশ কিছু দৃশ্য ধারণ বাকি। সামনেই আবার ‘স্বপ্নজাল’-এর শুটিং। আরো কয়েকটি ছবি নিয়ে কথা চলছে”, বললেন পরীমণি।

কথায় কথায় সদ্য প্রয়াত অভিনেত্রী দিতির কথা তুললেন। “আমরা অভিনয়শিল্পীরা আসলে যন্ত্রের মতো। যত ঝড়ই আসুক, কাজ করে যেতে হয়। মায়ের কথা মনে হলেই কান্না পায়। কিন্তু কী করব? ‘ধূমকেতু’ ছবিতে প্রথম তাঁকে মা হিসেবে পেয়েছি। যেদিন ক্যামেরার সামনে প্রথম মা বলে ডেকেছি, সেদিন থেকেই তিনি আমার মা। তাঁকে মা ডাকলে অনেক শান্তি পেতাম। মনে পড়ে, ফোন নম্বর সেভ করার সময় তিনি বলেছিলেন, ‘এই পিচ্চি, শুধু মা লিখে রাখ। কোনো নামটাম লিখবি না। ’ আমি হেসে হেসে বলেছিলাম, এহ্, তুমি বলার আগেই তো লিখে ফেলেছি,” বলেই আনমনা হলেন পরী।

নতুন ছবি ‘মন জানে না মনের ঠিকানা’ মুক্তি পাচ্ছে। কী ভাবছেন পরী? এই প্রশ্নে আবার নড়েচড়ে বসলেন। ‘চুক্তির দিক থেকে এটা আমার পাঁচ নম্বর ছবি। ২০১৪ সালের মাঝামাঝিতে শুটিং শুরু হয়। তখন অভিনয়ের অনেক কিছুই বুঝতাম না। তার পরও অনেক কঠিন একটা চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে হয়েছে। দর্শক এখন পর্যন্ত আমাকে যেসব চরিত্রে দেখেছে, এই ছবি তার থেকে ভিন্ন। গল্পও ভালো। আমি আর শিরিন শিলা এখানে যমজ বোন। একজনের সঙ্গে আরেকজনের শরীর লাগানো। পরে অপারেশনের মাধ্যমে আলাদা করা হয়। দর্শকের পছন্দ হবে। ’

ছবির গুরুত্বপূর্ণ দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন রাজ্জাক ও মৌসুমী। তাঁদের সঙ্গে অভিনয় করার অভিজ্ঞতা কেমন? ‘তাঁদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কতটা ভালো ডেলিভারি দিতে পারি, সেটাই ছিল চ্যালেঞ্জ। প্রথমে তো ভয়ই পেয়েছিলাম, যদি তাঁদের মতো করে অভিনয় করতে না পারি, তাহলে দৃশ্যটাই নষ্ট হয়ে যাবে। কিন্তু না, শুটিংয়ের সময়ই তাঁরা আমার অভিনয়ের প্রশংসা করেছেন। মৌসুমী আপু বেশ হাসিখুশি। প্রথম দিনেই তিনি আমাকে আপন করে নিয়েছেন। অভিনয়েও তিনি অনেক সাহায্য করেছেন। ছবিটিতে তিনি আমার উকিল। একটা খুনের দায় আমার ওপর পড়ে। আর আমাকে নির্দোষ করার লড়াইয়ে নামেন তিনি। ’

এ ছবির মাধ্যমে অভিষেক হচ্ছে নায়ক তানভীরের। তানভীর আর শিরিন শিলা—দুজনেরই প্রশংসা করলেন পরী।

২২ মার্চ জনপ্রিয় মার্কিন পত্রিকা ওয়াশিংটন পোস্টের অনলাইন সংস্করণে প্রকাশ পেয়েছে পরীর ছবি। ‘ইন সাইট’ বিভাগে ঢালিউড চলচ্চিত্রের শুটিংয়ের ১৬টি ছবি প্রকাশ করে পত্রিকাটি। পরীমণি ছাড়াও খলনায়ক আহমেদ শরীফের ছবিও রয়েছে। ‘কী উদ্দেশ্যে ছাপা হয়েছে জানি না। তবে নিজের ছবি এত বড় একটা নামি পত্রিকায় দেখে ভালোই লেগেছে,’ বললেন পরী।


মন্তব্য