kalerkantho


উপন্যাসের নায়িকা

শায়লিন উডলির অভিনীত প্রতিটি সিনেমার কাহিনীই কোনো না কোনো উপন্যাস থেকে নেওয়া। সেই ধারাবাহিকতায় আগামীকাল মুক্তি পাচ্ছে ‘ডাইভারজেন্ট’ সিরিজের নতুন পর্ব ‘অ্যালিজেন্ট’। তাঁর সম্পর্কে জানাচ্ছেন নাবীল অনুসূর্য

১৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



উপন্যাসের নায়িকা

হলিউডের তারকা হলেই কি নামিদামি ব্র্যান্ডের প্রসাধন ব্যবহার করতে হবে? শায়লিন উডলির মাথায় কিন্তু সেই ধরনের কোনো চিন্তাই কাজ করে না। নিজেই নিজেদের জন্য তৈরি করে নেন টুথপেস্ট থেকে শুরু করে বডি লোশন, ফেসওয়াশ জেল ইত্যাদি ইত্যাদি।

এসব পড়ে একটু পাগলাটে বা অন্য রকম মনে হতে পারে তাঁকে। কিন্তু শায়লিন ও রকমই। ‘দ্য ডিসেন্ডেন্টস’ (২০১১)-এ অভিনয়ের জন্য পেয়ে যান ‘গোল্ডেন গ্লোব’, ‘বাফটা’, ‘স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড অ্যাওয়ার্ডস’, ‘ইনডিপেনডেন্ট স্পিরিট অ্যাওয়ার্ডস’-এর মতো পুরস্কারের মনোনয়ন। স্বাভাবিকভাবেই এসব অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে হয়েছে শায়লিনকে। এসব অনুষ্ঠানে যেখানে সবাই নতুন ডিজাইনের পোশাক পরে যান সেখানে তিনি পরেন আগে ব্যবহার করা সব পোশাক। শুধু পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানেই নয়, ফটোশুটের সময় নাকি তিনি পুরনো কাপড় পরতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। এমনকি পারতপক্ষে বেশি মেকআপ করতেও চান না। বেশির ভাগ অনুষ্ঠানে তো তিনি এক রকম মেকআপ ছাড়াই চলে যান। বলা হয়ে থাকে ভবিষ্যতের জেনিফার লরেন্স হতে যাচ্ছেন শায়লিন। সেটা যে শুধু তাঁর অভিনয়গুণ দেখে বলা হচ্ছে তা কিন্তু নয়, তাঁর মধ্যে আছে জেনিফারের মতো মানবীয় গুণাবলিও। জেনিফারের মতো বিভিন্ন দাতব্য কাজের সঙ্গে যুক্ত আছেন শায়লিনও। ‘দ্য ফল্ট ইন আওয়ার স্টারস’(২০১৪) ছবির প্রয়োজনেই ছোট করতে হয়েছিল তাঁর চুল। সেই চুল দান করলেন ‘চিলড্রেন উইথ হেয়ার লস’ নামের একটি দাতব্য সংস্থাকে। এরা ক্যান্সারে চিকিৎসা চলাকালীন শিশুদের জন্য পরচুলা বানিয়ে থাকে।    

উদীয়মান অভিনেত্রীর কাতার থেকে উডলিকে প্রতিভাবান অভিনেত্রীর কাতারে নিয়ে আসার পেছনে কাজ করেছিল ‘ডাইভারজেন্ট’ আর ‘দ্য ফল্ট ইন আওয়ার স্টারস’। নির্দিষ্ট করে বলতে হলে বলতে হয় ডাইভারজেন্ট সিরিজের প্রথম ছবিটির কথা। সিনেমাটিতে ‘ট্রিস’ চরিত্রে তাঁর অভিনয় সবাইকে মুগ্ধ করে। অরল্যান্ডো উইকলি তো লিখেই ফেলল, “ডাইভারজেন্ট-এ শায়লিন উডলির অসামান্য অভিনয় সিনেমাটিকে কেবল বিপর্যয়ের হাত থেকেই রক্ষা করেনি, বরং ওটাকে সত্যি সত্যিই ‘ভালো সিনেমা’র কাতারে নিয়ে এসেছে। ” তাঁদের সঙ্গে সুর মিলিয়ে রোলিং স্টোন পত্রিকাও লিখেছিল, ‘উডলির অভিনয় এতটাই নিখুঁত, ক্যামেরার সামনে তাঁর অপ্রয়োজনীয় একটা নড়াচড়াও চোখে পড়ে না। ’

২০১৫ সালে মুক্তি পায় ডাইভারজেন্ট ট্রিলজির দ্বিতীয় সিনেমা ‘ইনসার্জেন্ট’। এই বছরেই সিরিজের শেষ ছবিটি মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রযোজনা সংস্থা সিদ্ধান্ত নেয়, ট্রিলজির শেষ কিস্তিটা দুই ভাগে ভাগ করার। আর তাই ‘হ্যারি পটার’, ‘টোয়াইলাইট’, ‘হাঙ্গার গেমস’-এর মতো ডাইভারজেন্ট সিরিজের শেষ কিস্তিও ভাগ হয়ে গেছে দুই ভাগে। ১৮ মার্চ মুক্তি পাচ্ছে প্রথম অংশ ‘অ্যালিজেন্ট’। আর আসছে বছরে মুক্তি পাবে সিরিজের শেষ কিস্তি ‘অ্যাসেনডেন্ট’। এসবের মাঝেই অভিনয় করছেন বিখ্যাত পরিচালক অলিভার স্টোনের বায়োগ্রাফিক্যাল পলিটিক্যাল থ্রিলার ‘স্নোডেন’-এও। ছবিটি মুক্তি পাবে এ বছরের সেপ্টেম্বরে।


মন্তব্য