সাবার খেলাঘর-334116 | রঙের মেলা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০১৬। ১৬ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৮ জিলহজ ১৪৩৭


সাবার খেলাঘর

দশ বছর আগে মোরশেদুল ইসলামের চলচ্চিত্র ‘খেলাঘর’-এ অভিনয় করেছিলেন। একই নামে এখন করছেন দীপ্ত টেলিভিশনের ধারাবাহিক। সোহানা সাবাকে নিয়ে লিখেছেন ইসমাত মুমু

১০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সাবার খেলাঘর

ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত হাতে গোনা কয়েকটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করেছেন। গত বছর সর্বশেষ অভিনয় করেছেন ‘সাতটি তারার তিমির’-এ। নতুন খবর হলো আবারও তাঁকে ধারাবাহিক নাটকে দেখা যাবে। দীপ্ত টিভির ধারাবাহিক ‘খেলাঘর’-এর মূল চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। দীপ্ত টিভির ধারাবাহিকের মূল চরিত্রে সাধারণত আনকোরা শিল্পীরা অভিনয় করেন। এই ধারাবাহিকটিই ব্যতিক্রম। এখানে সাবার সহশিল্পী নিলয় আলমগীর। গল্পে দরিদ্র ঘরের লক্ষ্মী মেয়ে সাবা। ধনী কাজিনের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। প্রথমে বোঝাপড়াটা ভালো থাকে না। আস্তে আস্তে সম্পর্কটা ভালো হয়। ‘অনেকেই ভাবেন, আমি দীপ্ত টিভির লম্বা কোনো সিরিয়ালে নাম লেখালাম কি না। আসলে ধারাবাহিকটির পরিকল্পনা ২৫ পর্বের। গল্প থেকে শুরু করে নির্মাণভাবনা খুবই ভালো। ভালো কিছুই হবে।’ বললেন সাবা।

এ ধারাবাহিকটি ছাড়া সাবার বর্তমান ব্যস্ততা একক নাটক নিয়ে। একটি নাটকের কথা আলাদা করে বললেন। রবীন্দ্রনাথের গল্প নিয়ে অঞ্জন আইচ নির্মাণ করবেন একক নাটক। এপ্রিলে শুটিংয়ে অংশ নেবেন সাবা।

চলচ্চিত্রে এ মুহূর্তে তেমন ব্যস্ততা নেই। কিছুদিন আগে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন ‘প্রাচীর পেরিয়ে’তে। শিশুতোষ এই চলচ্চিত্রে অতিথি চরিত্রে দেখা যাবে সাবাকে। তৃতীবারের মতো ফেরদৌসের সঙ্গে অভিনয় করবেন। মে মাসে কলকাতায় মুক্তি পাবে ‘ষড়রিপু’। গত বছর কলকাতায় এর শুটিং শুরু করেছিলেন। ‘দেশের গণ্ডি পেরিয়ে এটাই আমার প্রথম কাজ। স্বভাবতই আমি খুশি। পরিচালক অয়ন চক্রবর্তীর প্রথম ফিচার ফিল্ম হলেও তিনি অনেক দিন ধরেই চলচ্চিত্র নির্মাণের সঙ্গে আছেন, কাজটা বেশ ভালো হয়েছে।’ রোমান্টিক থ্রিলার এ চলচ্চিত্রে সাবা বড়লোকের বউ। ইন্দ্রনীল সেনগুপ্ত, রজতাভ দত্ত ও চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী তাঁর সহশিল্পী। এর আগে পাঁচটি ছবিতে অভিনয় করেছেন ‘আয়না’, ‘খেলাঘর’, ‘চন্দ্রগ্রহণ’, ‘প্রিয়তমেষু’, ‘বৃহন্নলা’। সবগুলোতেই তাঁর অভিনয় প্রশংসিত।

ছেলে স্বরবর্ণর বয়স সবে এক বছর পাঁচ মাস। তাকে সামলানোর দায়িত্বটা তার নানিই নিয়েছেন। তাই শুটিংয়ে খুব একটা সমস্যা হয় না।

‘বৃহন্নলা’য় সেরা কাহিনীকারের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন ছবির পরিচালক ও সাবার স্বামী মুরাদ পারভেজ। অভিযোগ উঠেছে, সৈয়দ মুস্তফা সিরাজের ছোটগল্প ‘গাছটি বলেছিল’ থেকে ‘বৃহন্নলা’র গল্পটি ‘চুরি’ করা। ছবির অভিনেত্রী হিসেবে আপনার মতামত? ‘সেটা পরিচালকই ভালো বলতে পারবেন। আমি তো এখানে অভিনেত্রী মাত্র।’ অল্প কথায় সাবার জবাব।

 

ছবি : বাংলানিউজ

মন্তব্য