kalerkantho

শনিবার । ২১ জানুয়ারি ২০১৭ । ৮ মাঘ ১৪২৩। ২২ রবিউস সানি ১৪৩৮।


সেরা এনিমেশন

‘অনুভূতি’দের গল্প

অর্ধশত পুরস্কার জেতা ‘ইনসাইড আউট’ অস্কারের সেরা এনিমেশন ছবির পুরস্কারটাও জিতে নিল। এই ছবির কথা বলছেন আনিকা জীনাত

৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



‘অনুভূতি’দের গল্প

মানুষের মনের আবেগগুলোর গুরুত্ব বুঝিয়ে দিয়েছে এবারের অস্কারে শ্রেষ্ঠ এনিমেশন ছবির পুরস্কার জিতে নেওয়া ‘ইনসাইড আউট’।

১১ বছরের একটি মেয়ের আনন্দ, বেদনা, রাগ, ভয় আর ঘৃণা—এই পাঁচটি আবেগকে এখানে আলাদাভাবে দেখানো হয়েছে। বিশ্বজুড়ে চুটিয়ে ব্যবসা করা এই ছবিটি বানাতে ব্যয় হয়েছে সাড়ে ১৭ কোটি ডলার, বিপরীতে আয় করেছে সাড়ে ৮৫ কোটি ডলার।

পিট ডক্টর ও রনি ডেল কারমেন পরিচালিত ছবিটির কাহিনী আসলে বাস্তব থেকেই অনুপ্রাণিত। সেটা ২০০৯ সালের কথা। মেয়ে যখন একটু একটু করে বড় হচ্ছিল, তখনই তার মনোজগতের পরিবর্তন নিয়ে ভাবতে শুরু করেন বাবা পিট ডক্টর। একাধিক মনোবিদের সঙ্গে কথা বলে বুঝতে পারলেন, আমাদের আবেগগুলো পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত। এর পরই কল্পনার সীমা অতিক্রম করে মানুষের মনোজগতের কাজকারবার নিয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন ধাঁচের একটি ছবি বানালেন তিনি।

এর আগে তাঁর বানানো ‘আপ’ (২০০৯) ছবিটিও শ্রেষ্ঠ এনিমেশন ছবির পুরস্কার পেয়েছিল। আগের বছরগুলোতে অস্কারে মনোনয়ন পাওয়া ‘ওয়াল-ই’, ‘টয় স্টোরি’ ও ‘মনস্টার’-এর মতো জনপ্রিয় এনিমেশন ছবিগুলোর কাহিনীকারও তিনি।

অস্কারের আগে ‘৪৩তম অ্যানি অ্যাওয়ার্ড’-এর আসরেও শ্রেষ্ঠ ছবিসহ মোট ১০টি বিভাগে পুরস্কার জিতে নেয় এই ছবি।

ছবিটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন অ্যামি পোহলার, ফিলিস স্মিথ, বিল হার্ডার, লুইস ব্ল্যাক ও মিন্ডি ক্যালিং। যে ছবি অস্কার হওয়ার আগেই বিভিন্ন আসরে ৫১টি পুরস্কার পেয়েছে, সেই ছবিই যে শ্রেষ্ঠ ছবির তকমা পাবে তা যেন অনুমিতই ছিল।


মন্তব্য