kalerkantho


গানপাগল সুমন

দ্বিতীয় অ্যালবাম প্রকাশের অপেক্ষায় এ এন সুমন। তাঁকে নিয়ে লিখেছেন ইসমাত মুমু

৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



গানপাগল সুমন

জন্ম এবং বেড়ে ওঠা নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে। গায়ক হওয়ার ইচ্ছা না থাকলেও স্কুল-কলেজে গাইতেন শখে। সেখানেই প্রশংসিত হলেন। তখনই সিদ্ধান্ত নিলেন, গায়কই হবেন। গ্রামের বাড়িতে সংগীতচর্চার পরিবেশ ছিল না। পরিবারের সমর্থনও ছিল না। ২০০৯ সালে তৌফিক আলমের কাছে প্রথম গানের সুর ও গায়কির তালিম নিলেন। গানে ক্যারিয়ার গড়ার লক্ষ্য নিয়ে এলেন ঢাকায়। ২০১৪ সালে প্রকাশ করেন প্রথম একক অ্যালবাম ‘কিছু প্রশ্ন’। সুর-সংগীত প্রীতম হাসান ও একাত্ম রহমান। কথা লিখেছেন মেহেদী হাসান লিমন।

‘বলা যায়, এই অ্যালবাম করতে গিয়েই আমি গানের অনেক কিছু শিখেছি। এর আগে তো কখনো রেকর্ডিং করিনি। রাত জেগে স্টুডিওতে দিনের পর দিন থেকে কাজটি করেছি। প্রীতম হাসানের সুর-সংগীতে এটিই প্রথম অ্যালবাম। বেশ যত্ন নিয়েই কাজটি করেছেন’—বললেন সুমন।

তবে অ্যালবাম তৈরির পর সেটা প্রকাশ করতে ঘুরতে হয়েছে অনেক। এ সময় সহযোগিতা পান বেশ কয়েকজন সিনিয়রের। এর মধ্যে বেলাল খানের নাম বিশেষভাবে উল্লেখ করলেন সুমন। প্রথম অ্যালবামের পর প্রকাশ করেন বিশ্বকাপ নিয়ে গান ‘সামনে চলো বাংলাদেশ’। গানটিতে রেমো বিপ্লবের সঙ্গে সুর দেন সুমনও। গেয়েছেন ৯ জন শিল্পী। সম্প্রতি প্রকাশ করেছেন ‘কেন বুঝিস না আমায়’ গানের ভিডিও। সামনেই প্রকাশ করবেন ‘বাড়িয়েছ হাত’ গানের আরেকটি ভিডিও। গানটিতে সুমনের সঙ্গে কণ্ঠ দেবেন সাবা। এখন ভাবছেন নিজের দ্বিতীয় একক অ্যালবাম নিয়ে। শিগগিরই কাজ শুরু করবেন।

একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন সুমন। তাই গানে শতভাগ সময় দেওয়া সম্ভব হয় না। সুযোগ পেলেই স্টেজ শো করেন। গান নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা? ‘সংগীত আমার ভালোবাসার জায়গা। কাছের মানুষরা কখনো উৎসাহ দেয়নি আমাকে। নিজের যোগ্যতা আর কঠোর পরিশ্রম করেই আজকের অবস্থানে। তাড়াহুড়া করে অনেক গান করতে চাই না। জীবনে দুটি অ্যালবাম করলেও যেন তা মানুষের মাঝে বেঁচে থাকে, সেটাই লক্ষ্য। এখন তো গাওয়ার পাশাপাশি সুরও করছি। ইচ্ছা আছে এই মাধ্যমে কিছু করার। নিজের গান ছাড়াও অন্যের গানেও সুর করব। ’


মন্তব্য