kalerkantho


'সেনা হেফাজতে নিহত রোহিঙ্গারা জঙ্গি ছিল না'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০৯:০২



'সেনা হেফাজতে নিহত রোহিঙ্গারা জঙ্গি ছিল না'

ছবি অনলাইন

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী সম্প্রতি স্বীকার করেছে একটি গ্রামে ১০ জন রোহিঙ্গা নিধনের কথা। তবে পাশাপাশি তারা দাবি করেছে, নিহত রোহিঙ্গারা জঙ্গি ছিল।

তবে ইনদিন গ্রামে সেনা হেফাজতে নিহত সেই ১০ রোহিঙ্গা জঙ্গি ছিল বলে মিয়ানমার সেনাবাহিনী প্রধানের এ বক্তব্য সঠিক নয় বলে দাবি করেছে সেখানকার গ্রামবাসীরা। বার্তা সংস্থা এএফপিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে গ্রামবাসীরা এ দাবি করে।

আরো পড়ুন : মিয়ানমারে আবারো নতুন সংঘর্ষের সুর

গ্রামবাসীদের দাবি, সেনাদের হাতে নিহত ১০ রোহিঙ্গা জঙ্গি ছিল না। তাদেরকে ঠাণ্ডা মাথায় খুন করা হয়েছে৷

এর আগে, গত বুধবার মিয়ানমার সেনাপ্রধান প্রথমবারের মতো ১০ রোহিঙ্গা হত্যাকাণ্ডের স্বীকারোক্তি দেন। সেনাপ্রধানের অফিশিয়াল ফেসবুক পোস্ট থেকে ইনদিন গ্রামের গণকবরের সত্যতা স্বীকার করে নিহতদের ‘বাঙালি জঙ্গি' বলে আখ্যায়িত করা হয়৷

আরো পড়ুন : রোহিঙ্গা নির্যাতনের ইতিহাস

সেনাপ্রধান দাবি করেন, ১ সেপ্টেম্বর ওই গ্রামে স্থানীয় এক ব্যক্তিকে হত্যার পর গ্রামবাসী ও নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় ‘রোহিঙ্গা বিদ্রোহীরা’। ওই সংঘর্ষের পর ১০ ‘বাঙালি সন্ত্রাসীকে’ আটক করা হয়। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একটি স্কুলে নেয়া হয়।

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক থাকা অবস্থায় সেখানে পর দিন গ্রামবাসী তলোয়ার নিয়ে তাদের ওপর হামলা করে। এ সময় নিরাপত্তা কর্মীরা তাদের গুলি করে। মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর তাদের লাশ মাটি চাপা দেয় সেনারা।


মন্তব্য