kalerkantho


শহীদ কামারুজ্জামানের স্ত্রীর মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১১:২২



শহীদ কামারুজ্জামানের স্ত্রীর মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

ফাইল ছবি।

ডাক নাম তার লাইলী। পুরো নাম জাহানারা জামান। দাম্পত্য জীবনের শুরু সেই ১৯৫১ সালে। জাহানারা জামান বগুড়ার দুপচাপিয়া থানার চামরুল গ্রামের তালুকদার পরিবারের মেয়ে।

আর বৈবাহিক সূত্রে তিনি রাজশাহী শহরের ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম নেওয়া জাতীয় চার নেতার একজন শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের স্ত্রী।

বিয়ের পর থেকেই স্বামীর রাজনৈতিক লড়াই সংগ্রামের একজন সহযোগী তিনি। প্রকাশ্য রাজনীতির ময়দানে তিনি অনুপস্থিত। তবে কামারুজ্জামানের রাজনৈতিক জীবনের নীতি ও আদর্শের একজন নির্ভেজাল সহযোদ্ধা।

যদিও রাজশাহী শহর মহিলা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভানেত্রী হিসেবে তার নাম উল্লিখিত হয়। তথাপি তার সবচেয়ে বড় লড়াই ছিল কামারুজ্জামানের লড়াই সংগ্রামে সহযোদ্ধার কাজটি নিষ্ঠা ও আদর্শের সঙ্গে চালিয়ে যাওয়া। স্বাধীনতা ও মুক্তি সংগ্রামীদের ইতিহাসে এরকম সহধর্মিণী বিরল নয় সত্য, তাই স্বাধীনতা ও মুক্তি সংগ্রামীদের সহযোদ্ধা সহধর্মিণীদের বিভিন্নরূপে সংগ্রামে অংশগ্রহণ উল্লেখ করা না হলে ইতিহাস অসম্পূর্ণ হতে বাধ্য।
 
জামান দম্পতির জীবন আর ১০ জন সাধারণ দম্পতির মতো ছিল না। কেননা এএইচএম কামারুজ্জামান রাজনীতিবিদ। রাজনৈতিক কার্যক্রমে তিনি সদা ব্যস্ত থাকতেন। যে সময় তাদের সংসার জীবনের শুরু সেই সময় বাংলাদেশ উত্তাল।

তাই কামারুজ্জামানকে সারাক্ষণ রাজনৈতিক সংগ্রামে ব্যস্ত থাকতে হয়েছে। আর ছেলে মেয়ে সংসারের যাবতীয় লড়াইটি জাহানারা জামানের ওপর বর্তে ছিল। স্বামীর সঙ্গে এভাবেই তার রাজনৈতিক সহযোদ্ধা হয়ে ওঠার প্রাণপন চেষ্টা।

রাজনৈতিক কারণে কামারুজ্জামান গ্রামে-গঞ্জে সংগঠনের কাজে ব্যস্ত, আবার একই কারণে রাজশাহীর বাইরে ঢাকা কিংবা করাচিতে থাকতে হয়েছে। অন্যদিকে উত্তাল দিনগুলোতে সংসারের যাবতীয় দায়িত্ব জাহানারা জামানকে সামলাতে হয়েছে। রাজনীতিবিদ স্বামীর স্থানীয় কর্মীদের সুখ দুঃখেও তাকে পাশে দাঁড়াতে হয়েছে।

কামারুজ্জামান যখন রাজশাহীতে অবস্থান করতেন, তখনো সকাল থেকেই দল সংগঠন আর সভা সমিতি নিয়ে ব্যস্ত থাকতেন তিনি। গভীর রাত পর্যন্ত জাহানারা জামান জেগে থাকতেন। আর ঘরে ফেরার সাথে সাথে খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা করা এবং আগামী দিনের জন্য প্রস্তুত করে দেয়ার কাজ তিনি নিষ্ঠার সঙ্গে করতেন।

শহীদ কামারুজ্জামানও চমৎকার মানুষ ছিলেন। গভীর  রাতে দরজার কড়া নেড়েই বলতেন, 'লাইলী ঘুম থেকে ওঠো, মজনু তোমার বাহিরে দাঁড়িয়ে।' এভাবেই হয়তো শহীদ কামারুজ্জামান তার সংগ্রামী সহযোদ্ধাকে ভালোবাসায় সিক্ত করার চেষ্টা করতেন।  

বাংলাদেশের রাজনীতির উত্তাল কালপর্বে জাহানারা জামান তার স্বামীকে উল্কার মতো ছুটে বেড়াতে দেখেছেন। স্বামীর সঙ্গে একান্তে সময় কাটানোর সময় কোথায়। তিনি যে স্বাধীনতা ও মুক্তিসংগ্রামে লিপ্ত। তাই তার আদর্শ ও চেতনার সহযোদ্ধা হিসেবে সংগ্রামে সহযোগিতা করাইতো এক ধরনের সংগ্রামে অংশগ্রহন।

তিনি তো শুধু সহধর্মিণী নন বরং আদর্শবোধের শক্তভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে সহযোদ্ধা ও সহমর্মিণীও। তাই স্বামীর সংগ্রামী কর্মকাণ্ডের যাতে বিপত্তি না ঘটে সেদিকেই তার সচেতন প্রয়াস। তিনি প্রতিদিনই শিউলি ফুল কুড়াতেন আর তা টেবিলে সাজিয়ে রাখতেন। শিউলি ফুল তিনি ভালোবাসতেন। সেটা হয়ত তার সংগ্রাম মুখর জীবনে শিউলি ফুলকে ভালোবেসে অব্যাহত লড়াইয়ের ময়দানে ক্ষণিক শান্তি লাভের প্রয়াস।

বাংলাদেশের জন্মের ইতিহাসের একজন প্রত্যক্ষদর্শী জাহানারা জামান। তিনি দেখেছেন পাকিস্তানি উপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে বাংলার মানুষের জাতীয়তাবাদী মুক্তিসংগ্রাম কীভাবে স্বাধীনতার পথে ধাবিত হয়েছে। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা সংগ্রাম সংগঠনের প্রক্রিয়া চাক্ষুস করেছেন।

অত্যন্ত কাছ থেকে মুক্তিযুদ্ধ সংগঠনের প্রক্রিয়া প্রত্যক্ষ করেছিলেন এবং দেশ কীভাবে শত্রুমুক্ত হচ্ছিল তাও তিনি প্রত্যক্ষ করেছেন। বাংলাদেশ শত্রুমুক্ত হওয়ার পর স্বাধীন বাংলাদেশ পুনঃগঠনের প্রক্রিয়ায়ও তার স্বামী অগ্রগণ্য নেতা ছিলেন।

ইতিহাসের কালো অধ্যায় জেল হত্যার পর তার জীবনের অন্যরকম যে সংগ্রাম তৎকালীন প্রতিক্রিয়াশীলদের আধিপত্যের সমাজ বাস্তবতায় শুরু হয়েছিল তা নতুন প্রজন্ম হয়তো সেভাবে আঁচ করতে পারবে না। শহীদ কামারুজ্জামানের সদ্য বিধবা স্ত্রী তার ছেলে মেয়েদের নিয়ে আরেক সংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়েন।

দুই ছেলেই তখন ভারতে পড়াশুনা কেরেন। তারা তাদের বাবার জানাজায়ও অংশগ্রহন করতে পারেননি। অপরদিকে স্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তার মেয়েদেরকেও ভর্তি নিতে অপারগতা প্রকাশ করে। সেই দুঃসময়ে জাহানারা জামান নিজ সন্তানদের দু'হাতে আগলে রেখে ও যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন করে প্রমাণ করে গেছেন যে, তিনি  ছিলেন শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের সহযোদ্ধা ও সহমর্মিণী।

এসব করতে গিয়ে তার সংগ্রামী দৃঢ়তা জাহানারা জামানের আদর্শবাদের শক্তিকেই প্রমাণ করে। অর্থাৎ তার এই দৃঢ়চেতা জীবন ও ইস্পাত কঠিন সংগ্রামের উৎস ভূমি ছিল আদর্শবাদ।
 
শেষ জীবনে তিনি শিশুর মতো হাসতেন আর ছোট ছোট বাক্যে কথা বলতেন। ধীর পায়ে হাঁটাচলা করতেন। নিচুস্বরে অনেক সময় গল্প করতেন। তার এসব গল্পে অনেক বিষয় থাকতো যা বাংলাদেশের ইতিহাসের অমূল্য উপাদান।

আগস্ট মাস শুরু হলেই তিনি কেমন যেন হয়ে যেতেন। এক ধরনের নীরবতা ও অস্থিরতা তার মধ্যে লক্ষ করা যেত। এই অবস্থা ডিসেম্বর পর্যন্ত চলতো।

তিনি ১৫ আগস্ট ও তিন নভেম্বর হত্যাকাণ্ডের বিচার চেয়েছেন সবসময়। কয়েকজনের ফাঁসিও দেখে গেছেন। কিন্তু সবসময়ই বিশ্বাস করতেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আদর্শ যদি বাংলাদেশের সামগ্রিক চর্চায় প্রোথিত না করা যায় তাহলে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতাসহ মুক্তি সংগ্রামে জীবন উৎসর্গ করা শহীদদের রক্ত বৃথা যাবে।

যদিও তিনি বাংলাদেশের ক্রম-বর্ধমান আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে খুশি ছিলেন। জাহানারা জামান প্রকাশ্যে রাজনীতি করেননি ঠিকই কিন্তু রাজনীতিকে তিনি গ্রহন করেছিলেন আদর্শবাদকে মাথায় রেখে। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি সেই আদর্শকে নিষ্ঠার সঙ্গে লালন ও ধারণ করেছেন। ২০১৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি তিনি না ফেরার দেশে চলে গেছেন। কাল তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় স্মরণ করছি তাকে।

লিখেছেন : সাদিকুর রহমান



মন্তব্য