kalerkantho

‘#মি টু’

২১ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



অনির্বাণের আত্মহত্যার চেষ্টা

কাওয়ান এন্টারটেইনমেন্টের প্রতিষ্ঠাতা অনির্বাণ দাস ব্লা বলিউডের ক্ষমতাধরদের একজন। হৃতিক রোশান, রণবির কাপুর, দীপিকা পাড়ুকোন, সোনম কাপুর, জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজসহ বেশ কয়েকজন জনপ্রিয় বলিউড তারকার মার্কেটিং ম্যানেজার তিনি। ‘#মি টু’ আন্দোলনের শুরুতেই বেশ কয়েকজন নারী তাঁর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ তোলেন। এসব অভিযোগের কোনো প্রতিবাদ করেননি অনির্বাণ, এমনকি কোনো বিবৃতিও দেননি। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে হঠাৎ আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তিনি। মুম্বাইয়ের ভাসি ব্রিজ থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন, ব্রিজের পাশের রেলিং টপকানোর সময় পুলিশ তাঁকে দেখে ফেলে। দ্রুত দৌড়ে এসে তাঁকে আটক করে পুলিশ। ব্যর্থ হয় তাঁর আত্মহত্যার চেষ্টা। তখনই কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। অনির্বাণের হাতে গড়া প্রতিষ্ঠান কাওয়ান এন্টারটেইনমেন্ট সূত্রে জানা যায়, অনির্বাণকে প্রতিষ্ঠান থেকে পদত্যাগ করার জন্য বলছিলেন অংশীদাররা। যে তারকাদের ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে ছিলেন তাঁরাও মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে, মানসিকভাবে অবসাদগ্রস্ত হয়েই আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন অনির্বাণ।

মালিকের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ

গায়িকা সোনা মহাপাত্র ও শ্বেতা পণ্ডিতের পর আরো দুজন নারী যৌন হয়রানির অভিযোগ করেছেন আনু মালিকের বিরুদ্ধে। দুজনের কেউই তাঁদের নাম-পরিচয় প্রকাশ করেননি। প্রথমজন নব্বইয়ের দশকের কোনো একসময়ে এই সুরকার-গায়কের হয়রানির শিকার হয়েছিলেন। ‘সোফায় আমার পাশে এসে বসল মালিক। তখনই মনে হলো, আমি বিপদে পড়তে যাচ্ছি। কারণ মালিকের পরিবারের কেউ সে সময় বাসায় ছিল না। হঠাৎ নিজের প্যান্ট খুলে ফেলল সে। একবার মনে হচ্ছিল ওকে ঘুষি মেরে দরজা খুলে বের হয়ে যাব। কিন্তু ওর সঙ্গে কিছুতেই পেরে উঠছিলাম না। ভাগ্য ভালো, ঠিক সে সময়ই ডোরবেল বেজে উঠেছিল’—টুইটারে অভিযোগকারীর ভাষ্য। গানের ব্যাপারে মালিকের সঙ্গে কথা বলতে চাইছিলেন আরেক উঠতি গায়িকা। মালিক তাঁকে স্টুডিওতে আমন্ত্রণ জানান এবং বলে দেন শিফন শাড়ি পরে আসতে। দেখা হওয়ার পর মালিক তাঁকে জড়িয়ে ধরেন, নিজেকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন গায়িকা। আগের দুই অভিযোগের মতো এই দুই অভিযোগও যথারীতি অস্বীকার করেন আনু মালিক।

 



মন্তব্য