kalerkantho


রাজীবপুর সমাজসেবা কর্মকর্তা

ঘুষের বিনিময়ে সেবা!

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, কুড়িগ্রাম   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেনের বিরুদ্ধে ঘুষের বিনিময়ে সেবা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসকের কাছে এই অভিযোগ করেন মোহনগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য রেফাজ উদ্দিন।

রেফাজ ও ভুক্তভোগী নাছিমা বেগমের অভিযোগে জানা গেছে, চররাজীবপুর কারিগরপাড়ার নাছিমার স্বামী আমিনুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে কাতরাচ্ছেন। টাকার অভাবে চিকিৎসা ও ওষুধ কিনতে পারছেন না। নাছিমা আর্থিক সাহায্যের জন্য সমাজসেবা মন্ত্রণালয় বরাবর আবেদনপত্র নিয়ে যান উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে। এ সময় সমাজসেবা কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন তাঁর কাছ থেকে পাঁচ হাজার টাকা ঘুষ নেন। সরকারি সাহায্য অনুমোদনের পর ওই কর্মকর্তা আরো পাঁচ হাজার টাকা ঘুষ চেয়ে বসেন। ঘুষের টাকা না দেওয়ায় তাঁকে সাহায্যের চেক দেননি।

অন্যদিকে ইউপি সদস্য রেফাজ উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, ‘ওই কর্মকর্তা বয়স্ক ভাতা ও প্রতিবন্ধী ভাতার সুবিধা দেওয়ার জন্য দুস্থদের কাছে ঘুষ নেন। অর্থের বিনিময়ে মৃত ব্যক্তির বয়স্ক ভাতা ও প্রতিবন্ধী ভাতা নাম পরিবর্তন করেন। এলাকার মানুষ সরকারি সেবা নিতে গেলে তাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেন।’ একই ধরনের অভিযোগ করেন কোদালকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির ছক্কুও।

জানতে চাইলে সমাজসেবা কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন বলেন, ‘আমি ঘুষ গ্রহণ করেছি, এমন প্রমাণ কেউ দেখাতে পারবে না।’

রাজীবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহেদী হাসান বলেন, ‘অভিযোগ করা হয়েছে জেলা প্রশাসকের কাছে। আমাকে তদন্তের নির্দেশ দিলে আমি তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করব।’



মন্তব্য