kalerkantho


কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর

মাদকসেবীর তাণ্ডবের প্রতিবাদ করায় বাড়িতে হামলা, আহত ৫

নিজস্ব প্রতিবেদক, হাওরাঞ্চল   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



চিহ্নিত এক মাদকসেবীর তাণ্ডবের প্রতিবাদ করায় কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরের তেঘরিয়া গ্রামের এক কলেজ শিক্ষকের বাড়িঘরে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালানো হয়েছে। রবিবার রাতের এ ঘটনায় কলেজ শিক্ষক মো. মাসুদ রানার এক চাচা, ভাইসহ অন্তত পাঁচজন গুরুতর আহত হয়েছে।

হামলাকারীরা ওই বাড়ি থেকে নগদ টাকাসহ কমপক্ষে পাঁচ লাখ টাকার মালামাল লুট করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। ঘটনার রাতেই বাড়িটিতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। আহত বাদল মিয়াকে (৫২) আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত আলমগীর হোসেন (৩৫) ও  আল-আমিন মিয়া (২৮) জহুরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিত্সাধীন।

এ ঘটনায় গতকাল আহত বাদল মিয়ার ভাতিজা এবং সরারচর টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. মাসুদ রানা বাজিতপুর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন। এজাহারে মাদকসেবী অন্তর মিয়া, তার বাবা বাদল মিয়াসহ ৯ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতপরিচয় আরো চার-পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহার, আক্রান্ত পরিবার ও গ্রামবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, রবিবার রাত ৯টার দিকে ইয়াবাসেবী অন্তর মিয়া মোটরসাইকেলে মাসুদ রানাদের বাড়ির সামনে আনাগোনা করে। ওই সময় সে চিত্কার-চেঁচামেচি ও বাড়ির লোকদের উদ্দেশে গালাগাল করছিল। মাসুদের চাচা নাসির উদ্দিন একপর্যায়ে এর কারণ জানতে চান। এতে অন্তর খেপে গিয়ে তাঁকে মারতে উদ্যত হয়। পরে মাসুদ এগিয়ে এসে বাধা দিয়ে অন্তরকে বাড়ি পাঠিয়ে দেন।

আক্রান্তরা জানায়, এর প্রায় দুই ঘণ্টা পর অন্তরের বাবা বাদল মিয়ার নেতৃত্বে ১৪-১৫ জন দেশি অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে এসে মাসুদদের বাড়ির তিনটি ঘর ভাঙচুর করে ও লুটপাট চালায়। এজাহার মতে, ওই বাড়ি থেকে মাছ বিক্রির তিন লাখ ২০ হাজার টাকা, স্বর্ণালংকারসহ পাঁচ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়।

খবর পেয়ে রাতেই ভাগলপুর ফাঁড়ি থেকে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং রাতব্যাপী সেখানে নিয়োজিত থাকে। তবে গত রাতে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

গ্রামবাসী জানায়, এজাহারে অভিযুক্ত অন্তর মিয়া, জারু মিয়ার ছেলে জাকির মিয়াসহ স্থানীয় একদল কিশোর-তরুণ নিয়মিত ইয়াবা সেবন করে। ইয়াবা সেবনের টাকা জোগাড় করতে দলটি বোরো জমির সেচ পাম্প, নলকূপের মাথাসহ বাড়িঘরের আসবাবপত্রও নিয়ে যায়। এদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ তেঘরিয়াবাসী।

বাজিতপুর থানার ওসি মো. খলিলুর রহমান পাটোয়ারী কালের কণ্ঠকে জানান, শিক্ষকের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই বাড়ির নিরাপত্তায় রাতে পুলিশ দেওয়া হয়েছিল। এ ব্যাপারে মামলা নথিভুক্ত করা হচ্ছে। যথারীতি আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের কাজ চলছে। আসামিদের গ্রেপ্তার করে বিচারের মুখোমুখি করা হবে।



মন্তব্য