kalerkantho


মিঠাপুকুরে হ্যাচারির বর্জ্যের দুর্গন্ধে পথচলা দায়

রংপুর অফিস   

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



রংপুরের মিঠাপুকুর ও পীরগঞ্জ উপজেলার পাঁচ ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ চলাচল করে শঠিবাড়ী-ভেণ্ডাবাড়ী বাইপাস সড়ক দিয়ে। কিন্তু পথে গোপালপুর ইউনিয়নের ধাপ উদয়পুর এলাকায় স্থাপিত নারিশ অ্যাগ্রো লিমিটেডের ব্রয়লার হ্যাচারির বর্জ্যের দুর্গন্ধে অতীষ্ঠ হয়ে উঠেছে পথচারী ও স্থানীয়রা। দীর্ঘদিন ধরে বর্জ্য অব্যবস্থাপনা ও কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে লক্ষাধিক মানুষকে। বারবার বলার পরও কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শঠিবাড়ী-ভেণ্ডাবাড়ী বাইপাস সড়কের ধাপ উদয়পুর এলাকায় প্রায় ১০ বছর আগে স্থাপিত হয় নারিশ অ্যাগ্রো লিমিটেডের কমার্শিয়াল ব্রয়লার হ্যাচারি। প্রতি সপ্তাহে তিন থেকে সাড়ে তিন লাখ বাচ্চা ফোটানো হয় এখানে। হ্যাচারির বর্জ্য ফেলার জন্য কর্তৃপক্ষ উদয়পুর এলাকায় শঠিবাড়ী-ভেণ্ডাবাড়ী সড়কের পাশে ২৫ শতক জমিজুড়ে স্থান নির্ধারণ করেন। কিন্তু সেই বর্জ্যের দুর্গন্ধে ওই এলাকা দিয়ে চলাচলা করা দায়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হ্যাচারি থেকে প্রায় ৩০০ মিটার পশ্চিমে রাস্তার ধারে বর্জ্য ফেলার স্থানটি। শঠিবাড়ী এলাকার মোটরসাইকেল আরোহী সেলিম রেজা বলেন, ‘শঠিবাড়ী-ভেণ্ডাবাড়ী সড়কটি দিয়ে চলাচল করার সময় গন্ধে দম বন্ধ হয়ে আসে।’ স্থানীয় আব্দুর রহমান ও মাহিদুল ইসলাম জানান, ব্রয়লারের বর্জ্যগুলো ফেলার কারণে দুর্গন্ধ আশপাশের এলাকাগুলোতেও ছড়িয়ে পড়ে। এর ফলে পরিবেশের ব্যাপক বিপর্যয় ঘটছে।

এ ব্যাপারে হ্যাচারির নির্বাহী ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, গর্তের স্লাবগুলো ভেঙে যাওয়ায় মূলত গন্ধ ছড়াচ্ছে। তবে সেগুলো ঠিকঠাক করার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। হ্যাচারির ব্যবস্থাপক মো. হাসানুজ্জামান বলেন, ‘আমরা অত্যাধুনিতক পদ্ধতিতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা করে থাকি। স্লাবগুলো ভেঙে যাওয়ার করণে দুর্গন্ধ ছড়াতে পারে।’ মিঠাপুকুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন-অর রশীদ বলেন, ‘পরিবেশ রক্ষায় কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। প্রয়োজনে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’



মন্তব্য