kalerkantho


ফুরফুরে আওয়ামী লীগ গ্রেপ্তার আতঙ্কে বিএনপি

বিয়ানীবাজার (সিলেট) প্রতিনিধি   

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ফুরফুরে আওয়ামী লীগ গ্রেপ্তার আতঙ্কে বিএনপি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার) আসনে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মান-অভিমান ভাঙিয়ে ফুরফুরে মেজাজে প্রচার চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তাঁর পক্ষে এক হয়ে কাজ করছে দুই উপজেলার তৃণমূল আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী ফয়ছল আহমদ চৌধুরী গ্রেপ্তার আতঙ্কে থাকা নেতাকর্মী নিয়ে জনসংযোগ করছেন বলে অভিযোগ দলটির নেতাদের।

সিলেট-৬ আসনে আরো নির্বাচন করছেন বিকল্পধারার শমসের মবিন চৌধুরী, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আজমল হোসেন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন মিলু মিয়া। তাঁরাও প্রচারে পিছিয়ে নেই। পাঁচ প্রার্থীই জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তবে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে আওয়ামী লীগের হোভিওয়েট প্রার্থী নুরুল ইসলাম নাহিদ ও বিএনপির নবাগত ফয়ছল আহমদ চৌধুরীর মধ্যে। অবশ্য সুষ্ঠু ভোট হওয়া নিয়ে শঙ্কায় আছেন ফয়ছল। তাঁর দাবি, মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার আতঙ্কে রয়েছে নেতাকর্মীরা। তিনি বলেন, প্রতীক বরাদ্দের দিন গোলাপগঞ্জ উপজেলায় তাঁর গাড়িবহর থামিয়ে সমর্থনকারী গোলাপগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ চৌধুরী, ফুলবাড়ি ইউপির চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান ফয়সল ও তিন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। বুধবার বিয়ানীবাজার উপজেলার মুড়িয়া ইউপির চেয়ারম্যান আবু খায়েরকে গ্রেপ্তার ও তাঁর নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুলিশ প্রতিদিন তল্লাশি চালাচ্ছে।

ফয়ছল বলেন, ‘আমার বিশ্বাস ছিল নির্বাচন কমিশন লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করবে। কিন্তু মনে হচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন শিক্ষামন্ত্রীকে (নুরুল ইসলাম নাহিদ) পাস করানোর এজেন্ডা বাস্তবায়নে কাজ করছে। তিনি পুলিশ প্রটোকল নিয়ে নির্বাচনী কার্যক্রম চালান। প্রশাসনের এই দ্বৈতনীতি নির্বাচনকে শুধু প্রশ্নবিদ্ধ করেনি, প্রত্যাশিত লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড হাস্যকরে পরিণত করেছে।’ তিনি বলেন, তাঁর প্রতিপক্ষ প্রার্থী নয়, পুলিশ প্রশাসন।

বিয়ানীবাজার উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি নজরুল হোসেন বলেন, ‘আমাদের কর্মীরা মাঠে নামবে কিভাবে, সবার মনেই ভয় যদি গ্রেপ্তার করা হয়! বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বাড়িতে পুলিশি তল্লাশি অব্যাহত রয়েছে। আমাদের সঙ্গে জনগণ আছে। তারা ৩০ ডিসেম্বর প্রমাণ করবে।’ 

তবে অভিযোগ আমলেই নিচ্ছেন না বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাসিব মনিয়া। তিনি বলেন, ‘বিএনপি বরাবরই মিথ্যা অভিযোগ করে। অভিযোগের কোনো সত্যতা নেই। তাদের মিথ্যা অভিযোগের জুড়ি নেই। আমরা জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। আমাদের প্রার্থীর পরিচ্ছন্ন ইমেজ আমাদের এগিয়ে রাখছে।’

সিলেট-৬ আসনে তিন লাখ ৭১ হাজার ৯০৩ জন ভোটার রয়েছে। এর মধ্যে এক লাখ ৮৩ হাজার ৮৫৬ পুরুষ ও এক লাখ ৮৮ হাজার ৪৭ জন নারী।



মন্তব্য