kalerkantho


এক প্রকল্পের শ্রমিক অন্য প্রকল্পে

মণিরামপুরে কর্মসংস্থান কর্মসূচিতে অনিয়ম

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি   

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রোহিতা ইউনিয়নে অতিদরিদ্রদের জন্য ৪০ দিনের কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। প্রকল্পের কাজ ছেড়ে শ্রমিকদের দিয়ে অন্য প্রকল্পের কাজ করানো হচ্ছে। এক সপ্তাহ ধরে এমন অনিয়ম চললেও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) ব্যবস্থা নেননি।

সরেজমিনে প্রকল্পগুলোতে গিয়ে দেখা যায়, রোহিতা ইউনিয়নের ৬ নম্বর কোদলাপাড়া ওয়ার্ডের ২৮ জন শ্রমিক ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) মাঠে নতুন তৈরি ইটের সলিং রাস্তার দুই পাশে মাটি ফেলছেন। যে রাস্তায় শ্রমিকরা কাজ করছে, এটি এলজিএসপি প্রকল্পের। সাড়ে সাত লাখ টাকা বরাদ্দে রাস্তাটির কাজ চলমান। যদিও কর্মসূচির এসব শ্রমিকদের ওয়ার্ডের ‘কোদলাপাড়া জামতলা মোড় হতে নোয়াপাড়া ঝাউতলা হয়ে ইউনিয়ন পরিষদ অভিমুখী রাস্তা সংস্কার’ প্রকল্পের কাজ করার কথা।

৫ নম্বর নোয়াপাড়া ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায়, এই ওয়ার্ডে ‘নোয়াপাড়া চার রাস্তার মোড় হতে সালামতপুর জামতলা হয়ে বাগডোব পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার’ প্রকল্পে কাজ করার কথা। কিন্তু প্রকল্পের ৩৬ জন শ্রমিকের কেউ সেই কাজ করছে না। তারা স্থানীয় মাঠপাড়ায় ধানের ক্ষেতের পাশে কাজ করছে। শ্রমিকরা যেখানে কাজ করছে, সেই মাঠটি ওয়ার্ডের মাঠপাড়ার প্রস্তাবিত ঈদগাহ মাঠ।

এ সময় জানতে চাইলে শ্রমিক সর্দার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘তিন দিন ধরে আমরা নোয়াপাড়া মাঠপাড়ার ঈদগাহ মাঠ ভরাটের কাজ করছি। এই মাঠ ভরাটের কাজ প্রকল্পে আছে কি না, তা বলতে পারব না।’

প্রকল্প সভাপতি ইউপি সদস্য শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘ঈদগাহ মাঠ ভরাটের কাজ প্রকল্পে নিই। এলাকার জনগণের স্বার্থে এখানে কাজ করাচ্ছি।’

৬ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মনিরুজ্জামান বলেন, ‘প্রকল্পে নেই। চেয়ারম্যান আবু আনছার সরদারের অনুরোধে ইউনিয়ন পরিষদের মাঠের সলিং রাস্তার দুই পাশে কাজ করানো হচ্ছে।’

এ ছাড়া ওই ইউনিয়নের সরসকাঠি, পট্টি, গাঙ্গুলিয়া ওয়ার্ডে চারজন করে এবং এড়েন্দা ওয়ার্ডে দুজন করে শ্রমিক অনুপস্থিত থাকছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

উপজেলা পিআইও মো. বায়েজিদ বলেন, ‘রোহিতা ইউনিয়নের যে দুটি প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে সে ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। চেয়ারম্যানকে ডেকে কারণ দর্শানোর জন্য বলা হয়েছে।’



মন্তব্য