kalerkantho


রংপুরে ক্রিকেট গার্ডেন ঘেঁষে অবৈধ বস্তি

স্বপন চৌধুরী, রংপুর   

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



রংপুরে ক্রিকেট গার্ডেন ঘেঁষে অবৈধ বস্তি

রংপুরের একমাত্র ক্রিকেট খেলার মাঠ ‘ক্রিকেট গার্ডেন’। এখানে গতকাল সোমবার শুরু হয়েছে ২০তম জাতীয় ক্রিকেট লীগের চতুর্থ রাউন্ডের খেলা। এই খেলা ঘিরে নগরজুড়ে বিরাজ করছে উদ্দীপনা; কিন্তু ক্রিকেট গার্ডেনের প্রধান ফটক ঘেঁষে ৪০০ গজের বেশি জায়গা দখল করে গড়ে উঠেছে অবৈধ বস্তি। এতে ক্রিকেট গার্ডেনে খেলার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সচেতন নাগরিকরা। এ ছাড়া নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত খেলোয়াড়রা।

২০তম জাতীয় ক্রিকেট লীগের চতুর্থ রাউন্ডের উদ্বোধনী খেলা ঘিরে ক্রিকেট গার্ডেনকে নতুন রূপে সাজানো হয়েছে। ড্রেসিংরুম থেকে শুরু করে খেলার মাঠ—সব জায়গায় সংস্কারকাজ করা হয়েছে। গতকাল খেলা দেখতে স্থানীয় লোকজনের পাশাপাশি বাইরের জেলার প্রচুর মানুষ ভিড় করে ক্রিকেট গার্ডেনে।

রংপুর ক্রীড়া সংস্থা সূত্রে জানা যায়, গতকাল উদ্বোধনীতে স্বাগতিক রংপুর বনাম বরিশাল বিভাগের খেলার মধ্য দিয়ে প্রথম পর্যায়ের খেলা শুরু হয়। লীগের অন্য দল হচ্ছে রাজশাহী। চার দিনব্যাপী খেলা শেষ হবে ২৫ অক্টোবর। তিন দিন বিরতি দিয়ে দ্বিতীয় পর্যায়ের খেলা শুরু হবে ২৯ অক্টোবর। চলবে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দুই একর পুকুরসহ ১০ একর জমি নিয়ে ১৯৯৬ সালে যাত্রা শুরু করে রংপুর ক্রিকেট গার্ডেন। প্রথম দিকে সীমানাপ্রাচীরসংলগ্ন হাতেগোনা কয়েকটি ছোট ঝুপড়িতে থাকা শুরু করে ভাসমান মানুষ। পরে ঝুপড়ির পরিবর্তে টিনের ঘর ওঠা শুরু হয়। বাধা না পাওয়ায় প্রতিবছর ঘরের সংখ্যা বাড়ছে। বর্তমানে ক্রিকেট গার্ডেনের সীমানায় ভাসমান মানুষ প্রায় ২৫টি ছোট ঘর বানিয়ে বাস করছেন। সেখানে পশু পালনসহ সবজির গাছ লাগিয়েছেন তাঁরা। এসব বাড়ির শিশু ফুল কুড়িয়ে মালা বানিয়ে নগরের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করে। পরিবারের পুরুষরা রিকশা চালনা, ইটভাঙাসহ দিনমজুরের কাজ করেন। ক্রমে সেই বস্তির পরিধি বাড়ছে।

রংপুর ক্রিকেট গার্ডেনে খেলতে আসা এনামুল, শওকত ও আশরাফুল বলেন, মাঠে খেলার সময় তাঁদের সঙ্গে মোবাইল ফোন, খেলার বিভিন্ন সরঞ্জাম থাকে। ক্রিকেট গার্ডেনের সীমানায় বস্তি গড়ে ওঠায় সেগুলো চুরি যাওয়ার ভয় রয়েছে।

গত রবিবার বিকেলে ক্রিকেট লীগের খেলা ঘিরে মাঠ সাজানো দেখতে এসেছিলেন পার্শ্ববর্তী রাধাবল্লভ এলাকার আশিক রায়হান ও সৌরভ মিয়া। তাঁরা জানান, মাঠ ঘেঁষে বস্তি গড়ে ওঠায় নিরাপত্তাসহ খেলার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। দ্রুত ক্রিকেট গার্ডেনসংলগ্ন অবৈধ বস্তি উচ্ছেদের দাবি জানান তাঁরা।

বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া সংস্থার কোষাধ্যক্ষ মেরিনা লাভলী ও জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য শাহনাজ বেগম বলেন, সরকারের আন্তরিকতায় রংপুরের মাঠে জাতীয় খেলাগুলো গড়াচ্ছে; কিন্তু খেলার মাঠের সামনে অবৈধ স্থাপনা মাঠের সৌন্দর্য নষ্ট করছে এবং ক্ষুণ্ন হচ্ছে ক্রীড়া সংস্থার ভাবমূর্তি।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক এবং রংপুর জেলা ও বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আইনজীবী আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ক্রিকেট গার্ডেনের প্রধান ফটকের পাশে অবৈধ বস্তি উচ্ছেদের জন্য একাধিকবার জেলা ও বিভাগীয় প্রশাসনকে বলা হয়েছে; কিন্তু এ ব্যাপারে কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

যোগাযোগ করা হলে রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, নগরীকে পর্যায়ক্রমে পরিচ্ছন্ন ও নিরাপদ করে গড়ে তুলতে বস্তি উচ্ছেদসহ বিভিন্ন পরিকল্পনা তাঁদের আছে। এটি শুধু সময়ের ব্যাপার।

 

 



মন্তব্য