kalerkantho


সরকারি তোলারাম কলেজ

লক্কড়ঝক্কড় বাস ঝুঁকিতে শিক্ষার্থীরা

দিলীপ কুমার মণ্ডল, নারায়ণগঞ্জ   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



লক্কড়ঝক্কড় বাস ঝুঁকিতে শিক্ষার্থীরা

নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজের শিক্ষার্থীদের আনা-নেওয়ার কাজে ব্যবহৃত দুটি বাসের অবস্থাই বেহাল। ফিটনেসহীন লক্কড়ঝক্কড় মার্কার বাসের কারণে শিক্ষার্থীরা যেকোনো সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়তে পারে।

কলেজের শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে ২০১১ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুটি বাস উপহার দেন। অবহেলা আর সংস্কারের অভাবে এখন বাস দুটি ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। তবুও এক প্রকার জোর করেই বাস দুটি সড়কে চালানো হচ্ছে। এতে নিরাপত্তার ঝুঁকিতে রয়েছে শিক্ষার্থীরা।

সম্প্রতি রাজধানীর কুর্মিটোলায় দুই বাসের প্রতিযোগিতায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় সারা দেশের ছাত্র-ছাত্রীরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাস্তায় নেমে আসে। টানা কয়েক দিন আন্দোলন করে গাড়িসহ সড়কের নানা সমস্যার বিষয়টি জানান দেয় তারা। এ আন্দোনলকে সমর্থন করেছে সরকারি তোলারাম কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরাও। কিন্তু তাদের গাড়িরই ফিটনেস নেই। ফিটনেসবিহীন বাসে প্রতিদিন কলেজের বহু ছাত্র-ছাত্রী ঝুঁকি নিয়ে রাস্তায় চলাচল করছে।

সরেজমিনে কলেজে গিয়ে দেখা যায়, বাস দুটির অবস্থা বেহাল। নির্দিষ্ট কোনো গ্যারেজ নেই। বাস দুটি বাহির থেকে চকচকে মনে হলেও ভেতরে যেন ত্রাহি অবস্থা। বাসের বডিতে মরিচা ধরেছে। রং উঠে যাচ্ছে। কোথাও কোথাও ভেঙে গেছে।

বাসের ফিটনেস প্রসঙ্গে তোলারাম কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র মমিনুল হক বলে, ‘রাস্তায় নেমে আমরা আন্দোলন করলাম। কিন্তু তার পরও আমরা নিরাপদ হতে পারলাম না। বাইরের বাসগুলোর অবস্থা না হয় না-ই বললাম। আমাদের নিজেদের বাসগুলোই তো ঠিক নেই। এর জন্য কাকে ধরব?’

একাদশ শ্রেণির ছাত্র আশরাফ হোসেন বলে, ‘কলেজে ভর্তি হওয়ার পর থেকেই এই অবস্থা দেখছি। বাসের ভেতরের অবস্থা মোটেও ভালো নয়। অনেক জায়গা খসে পড়েছে। বাসের অবস্থাও নড়বড়ে। ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটলেও মারাত্মক ক্ষতি হয়ে যাবে।’

এ ব্যাপারে সরকারি তোলারাম কলেজের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জীবন কৃষ্ণ মোদক বলেন, বাস দুটি দেখভাল করে পরিবহন কমিটি। গত সাত বছরে বাস দুটি চলাচলের প্রায় অযোগ্য হয়ে পড়েছে। ২০ হাজার ছাত্র-ছাত্রীর এই বিদ্যাপীঠে আরো দুটি বাস জরুরি দরকার। একই সঙ্গে পুরনো বাস দুটিও মেরামত করে সারিয়ে তোলার তাগিদ দেন তিনি। সরকারি তোলারাম কলেজের অধ্যক্ষ বেলা রানী সিংহ বলেন, ‘বাস দুটির বাইরের চেহারা কিছুটা খারাপ হলেও ভেতরের অবস্থা ভালো। এরই মধ্যে ডেন্টিংসহ অন্যান্য কাজ করা হয়েছে। তবে বাসের অন্য ত্রুটিগুলো সারাতেও শিগগিরই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ কাগজপত্র ঠিকঠাক আছে কি না, এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিষয়টি পরিবহন কমিটিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তারাই সব ব্যবস্থা করবে।’

 



মন্তব্য