kalerkantho


শরণখোলা পোস্ট অফিস

ছাদ চুইয়ে পড়ে বৃষ্টির পানি

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ছাদ চুইয়ে পড়ে বৃষ্টির পানি

বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলা পোস্ট অফিসের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে দাপ্তরিক কাজ। ছবি : কালের কণ্ঠ

সর্বত্র ফাটল ধরেছে। খসে পড়ছে পলেস্তারা। ছাদ চুইয়ে পড়া বৃষ্টির পানিতে মূল্যবান ডকুমেন্ট, আসবাব নষ্ট হচ্ছে। আবার অতিরিক্ত বৃষ্টিতে আশপাশের ডোবা-নালা ভরে অনেক সময় ভবনের মেঝেতে ঢুকে পড়ছে ময়লা পানি। এ চিত্র বাগেরহাটের শরণখোলার পোস্ট অফিসের। এভাবে প্রায় এক যুগ ধরে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনটিতে কাজ করছেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। তবু মেরামতের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

জানা যায়, ২০০৭ সালে সিডরের পর ভবনটি নামমাত্র মেরামত করা হয়েছিল। এর বছরখানেক পর থেকেই ভবনের পলেস্তারা খসে পড়তে শুরু করে। ভবন মেরামতের জন্য বারবার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েও কোনো ফল হয়নি। সর্বশেষ এ বছরের ৭ আগস্ট দক্ষিণাঞ্চল খুলনার পোস্ট মাস্টার জেনারেল বেগম বাহিজা আক্তার পরিদর্শনে এসে সমস্যাগুলো দেখেছেন। প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন সমাধানের। কিন্তু সমাধানের কোনো লক্ষণই নেই।

উপজেলা পোস্টাল অপারেটর মো. লাতুমিয়া বলেন, ‘আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছি। ছাদ থেকে পানি পড়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র ভিজে যাচ্ছে। আসবাব নষ্ট হয়েছে। বাধ্য হয়ে কাগজপত্র পলিথিনে মুড়ে রাখতে হচ্ছে। ছাদ থেকেও যেমন পানি পড়ে তেমনি বাইরের পানি ফ্লোরে ঢুকে পড়ছে। দুই দিকের পানির চাপ আর ভবন বেহালের আতঙ্কে থাকতে হয় আমাদের। যেকোনো সময় ভবনধসে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।’ তিনি আরো বলেন, ‘এ পোস্ট অফিসের অধীনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ১২টি শাখা অফিস আছে। এখানে নিয়মিত চিঠিপত্র ছাড়াও পরিবার সঞ্চয়পত্র, তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্র, পেনশন সঞ্চয়পত্র, সাধারণ হিসাব, মেয়াদি হিসাবসহ অনেক সেবা চালু আছে। এসব সেবার গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট এবং শাখা অফিসগুলোর কাগজপত্র এখানে জমা থাকে। এসব নষ্ট হলে পাওয়া মুশকিল হয়ে পড়বে।’

এ ব্যাপারে দক্ষিণাঞ্চল খুলনার পোস্ট মাস্টার জেনারেল বেগম বাহিজা আক্তারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি। তবে অতিরিক্ত পোস্ট মাস্টার জেনারেল মো. আবু তালেব মোবাইল ফোনে বলেন, ‘সারা দেশে অনেক পোস্ট অফিস ভবনের অবস্থা খারাপ। সে তুলনায় বাজেট খুবই কম পাওয়া যায়। শরণখোলা পোস্ট অফিসটি মেরামত বা নতুন ভবনের জন্য আগামী বাজেটে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।’



মন্তব্য