kalerkantho


বামনা ভূমি অফিসে ঘুষ বাণিজ্য

বামনা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বরগুনার বামনা উপজেলা ভূমি অফিসের অফিস সহকারী মো. ফারুক খানের বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ৭ জুলাই সুভাষ চন্দ্র সাহা ও মো. আশ্রাব আলী হাওলাদার নামের দুই ব্যক্তি তাঁর বিরুদ্ধে ঘুষ-দুর্নীতির অভিযোগ এনে বরগুনা জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেন। সেই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বরগুনার রেভিনিউ ডেপুটি কলেক্টর রুবাইয়া তাছনিম স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে আজ বৃহস্পতিবার শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।

অভিযোগপত্রে জানা গেছে, বামনা উপজেলা ভূমি অফিসের অফিস সহকারী ফারুক খানকে টাকা দিলে জমা খারিজ হয়, আর না দিলে খারিজ হয় না। শুধু জমা খারিজ নয়; তাঁর বিরুদ্ধে ডিসিআর সংগ্রহ, পরচা উত্তোলন, মিউটেশন থেকে শুরু করে সবকিছুতেই ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ রয়েছে। তিনি অফিস চলাকালীন অফিসের কম্পিউটারে ফেসবুক আর ইউটিউব দেখা নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। গত প্রায় ১০ বছর ধরে বামনা উপজেলায় কর্মরত থাকায় তিনি বিভিন্ন এলাকায় দালাল তৈরি করে এ ঘুষ বাণিজ্য করছেন। তাঁর হয়রানি থেকে রেহাই পেতে একাধিক ব্যক্তি জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছে।

উপজেলার ডৌয়াতলা ইউনিয়নের বাসিন্দা ও আমুয়া ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক মনিরুজ্জামান শাহিন জানান, তাঁর একখণ্ড জমি মিউটিশনের জন্য ফারুক খানের কাছে গেলে তিনি টাকা দাবি করেন। তাঁকে ছয় হাজার টাকা দেওয়ার পর তাঁর জমির মিউটিশন করা হয়।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ফারুক খান এ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘আমি কখনো কারো কাছ থেকে টাকা নিইনি।’



মন্তব্য