kalerkantho


মাদারীপুরের বাজার মা ইলিশে সয়লাব

মাদারীপুর প্রতিনিধি   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



মাদারীপুরের বাজার মা ইলিশে সয়লাব

মাদারীপুরের মস্তফাপুর বাজারে বিক্রি হচ্ছে ডিমওয়ালা ইলিশ। ছবি : কালের কণ্ঠ

বর্তমানে পদ্মা নদীর মাদারীপুর অংশে তিনটি ইউনিয়নের কয়েক শ জেলের জালে ডিমওয়ালা মা ইলিশ ধরা পড়ছে। ফলে মাদারীপুরের বিভিন্ন হাট-বাজারে প্রচুর ডিমওয়ালা ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। বাজারে মাছের সরবরাহ বিগত কয়েক মাসের তুলনায় অনেক বেশি দেখা গেছে। ডিমওয়ালা ইলিশ বেশি ওঠায় অনেক ক্রেতা আনন্দের সঙ্গেই মাছ কিনছেন। তবে এ ধরনের মাছ না ধরার পক্ষে মত দিয়েছে মাদারীপুরের সচেতন মহল।

মাদারীপুরের বেশ কয়েকটি হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে, শিবচর উপজেলার নদীবেষ্টিত বন্দরখোলা, কাঁঠালবাড়ি ও চরজানাজাত ইউনিয়নের ২০ গ্রামের কয়েক শ জেলে এখন পদ্মায় ইলিশ মাছ ধরা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছে। জেলেরা প্রতিদিন হাজার হাজার ডিমওয়ালা ইলিশ ধরছে। পরে এগুলো উপজেলার পাঁচ্চর আড়ত, মাওয়া ঘাটের আড়ত ও জেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে বিক্রি করছে।

শহরের ইটেরপুল বাজারে মাছ কিনতে আসা মেহেদী হাসান বলেন, ‘বাজারে প্রচুর ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু দাম একটু বেশি। প্রায় প্রতিটি মাছেই ডিম রয়েছে।’

মাদারীপুর সদর উপজেলার পুরান বাজার মাছের আড়তের ব্যবসায়ী দিদার হোসেন বলেন, ‘আমি দীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে ইলিশ মাছের ব্যবসা করছি। শহরের সবচেয়ে বড় মাছের বাজার হচ্ছে এটা। এখানে পদ্মার ইলিশ বেশি পাওয়া যায়। বর্তমানে যে ইলিশগুলো বাজারে আসছে তার বেশির ভাগের পেটে ডিম রয়েছে। এ কারণে দামও অনেক বেশি। পদ্মার মাছ ছাড়াও বরিশাল ও চাঁদপুর অঞ্চল থেকে এখানে ইলিশ আসে।’

মাদারীপুর পরিবেশবাদী সংগঠন ‘ফ্রেন্ডস অভ্ নেচারে’র নির্বাহী পরিচালক রাজন মাহমুদ বলেন, ‘এখন বাজারে প্রচুর ডিমওয়ালা ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। তাই এখনই মাছ ধরা বন্ধ করা উচিত। মা ইলিশ ধরা বন্ধ করলে আগামী বছর প্রায় দ্বিগুণ মাছ পাওয়া যাবে। সাধারণ মানুষও সহজেই ইলিশ কিনে খেতে পারবে।’

শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান আহম্মেদ বলেন, ‘ইলিশ মাছের প্রজনন মৌসুম কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। এ কারণে এখনই ডিমওয়ালা ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। সরকার মাছ ধরা নিষেধ রাখছে অক্টোবর মাসের প্রথম দিক থেকে। আমার দৃষ্টিকোণ থেকে সেপ্টেম্বর মাসের শুরু থেকে পুরো অক্টোবর মাস পর্যন্ত মাছ ধরা বন্ধ রাখলে সামনের মৌসুমে প্রচুর ইলিশ পাওয়া যেত। এ বিষয়টি নিয়ে আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করব।’

মাদারীপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুস সাত্তার বলেন, এখন পদ্মা নদীতে জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ছে। দেখা গেছে, বেশির ভাগ মাছের পেটে ডিম। প্রতিবছর ১ অক্টোবর থেকে ২২ দিন পর্যন্ত ইলিশ মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকে। এখনো ইলিশের পরিপূর্ণভাবে ডিম ছাড়ার সময় আসেনি।

তা ছাড়া ডিমওয়ালা মাছ ধরা কবে থেকে নিষেধ করা হবে তা নির্ধারণ করে মৎস্য গবেষণা কেন্দ্র। এখনো ডিমওয়ালা ইলিশ ধরা বন্ধের বিষয়ে তাদের কাছ থেকে কোনো চিঠি আসেনি।



মন্তব্য