kalerkantho


ভৈরবে বিরোধের জেরে খুন ছিনতাইকারী

দুর্বৃত্তদের হাতে রাজমিস্ত্রি

নিজস্ব প্রতিবেদক, হাওরাঞ্চল   

১৪ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ছিনতাই করা মালামালের ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে গতকাল সোমবার দুপুরে নিজেদের মধ্যে বিরোধে ছিনতাইকারীদের হাতে বাপ্পী (১৮) নামের এক ছিনতাইকারী নিহত হয়েছে। বাপ্পী পৌর শহরের আমলাপাড়ার মোবারক মিয়ার ছেলে। এদিকে রবিবার রাতে (১২ আগস্ট) বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে শাহীন মিয়া (২০) নামের এক রাজমিস্ত্রিকে খুন করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহত শাহীন পৌর শহরের কালীপুর মধ্যপাড়ার মৃত নূরু মিয়ার ছেলে। 

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল দুপুরে ভৈরবের মেঘনা মৈত্রী সেতুর কাছে উপজেলার জামালপুরের জাফরিন রহমান ও তাঁর ভাই আরিফুর রহমান, ছনছড়ার তানজিনা, সাগর মিয়া বেড়াতে আসেন। এরা সবাই শিক্ষার্থী। তাঁরা রেললাইন দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় এক দল ছিনতাইকারী আচমকা ছুরির ভয় দেখিয়ে একটি স্বর্ণের চেন, তিনটি মোবাইল ফোনসেট ও এক হাজার ২০০ টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ সময় ছিনতাইকারীরা আরিফুরের হাতে ও পায়ে ছুরিকাঘাত করে।  

ভৈরব রেলওয়ে থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুল মজিদ জানান, ছিনতাইয়ের পর পর মালামালের ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে সঙ্গের এক ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে বাপ্পী ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারায়। বাপ্পী পেশাদার ছিনতাইকারী। তার বিরুদ্ধে ভৈরব থানায় হত্যা, ছিনতাইসহ বিভিন্ন মামলা রয়েছে। এ ঘটনায় রেলওয়ে থানায় নিহত বাপ্পীর বাবা মোবারক মিয়া বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা এবং ছিনতাইয়ের শিকার শিক্ষার্থী সাগর মিয়া বাদী হয়ে আরো একটি ছিনতাইয়ের মামলা দায়ের করেছেন।

এদিকে খুন হওয়া রাজমিস্ত্রি শাহীন অনেক দিন ধরেই ইজ্জত আলীর ছেলে শামীমের সঙ্গে রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন। পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্র জানায়, কাজের পাওনা টাকা নিয়ে শামীমের সঙ্গে শাহীনের ঝগড়া হয়। রবিবার রাত ১০টার দিকে শামীম ও আরো কয়েকজন এসে শাহীনকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। রাতেই কালীপুর কবরস্থানের পাশে শাহীনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাহীনের মৃত্যু ঘটে।  

শাহীনের মা সরবান বানু জানান, শামীমরা এসে শাহীনকে ডেকে নিয়ে যাওয়ার পর বাড়িতে আসতে দেরি হতে দেখে তিনি নিজেই ছেলেকে খুঁজতে বের হন। এর পরই প্রতিবেশীদের চিৎকার শুনে কবরস্থানে পাশে ছুটে গিয়ে শাহীনকে মুমূর্ষু দেখতে পান। তিনি তাঁর ভাষায় বলেন, ‘টাকা-পয়সা নিয়ে বিরোধের জের ধরেই শামীমরা শাহীনকে খুন করেছে।’

ভৈরব থানার ওসি (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার জানান, ঘটনার খবর শুনে তাৎক্ষণিকভাবে হাসপাতাল থেকে লাশ থানায় নিয়ে আসা হয়। ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহ কিশোরগঞ্জ জেলা আধুনিক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।



মন্তব্য