kalerkantho


নদীপথে চাঁদাবাজি বন্ধে ৫ দিনের আলটিমেটাম

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৩ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



নদীপথে চাঁদাবাজি ও শ্রমিকদের ওপর নির্যাতন বন্ধ না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছে নৌযান শ্রমিকরা। নৌ শ্রমিকদের ওপর হামলাকারী সন্ত্রাসীদের আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে গ্রেপ্তার করা না হলে নদীপথে পণ্য পরিবহন বন্ধ রাখারও ঘোষণা দেওয়া হয়। গতকাল রবিবার সকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের উদ্যোগে আয়োজিত মানববন্ধনে এই হুঁশিয়ারি দেন নেতারা। নদীপথে সন্ত্রাসী চাঁদাবাজি বন্ধসহ রূপগঞ্জে বালু নদীতে সন্ত্রাসীদের হামলার প্রতিবাদে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

মানববন্ধনে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সবুজ শিকদার মাস্টার বলেন, ‘গত ৬ আগস্ট মেঘনায় মতিন কাজী বাহিনীর হামলায় কয়েকজন নৌ শ্রমিক আহত হয়েছে। গত শুক্রবার রূপগঞ্জের বালু নদীতে ফকিরখালী নামক স্থানে চাঁদাবাজ চক্রের মূলহোতা মাসুদের (৩০) নেতৃত্বে একটি চক্র দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এমবি দূরন্ত নামের একটি বালুবাহী বাল্কহেডের সুকানি তৈয়ব আলীসহ চারজনকে পিটিয়ে আহত করে টাকা ও মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ ছাড়া পদ্মার বাঘাবাড়ি বন্দর, শীতলক্ষ্যা, মেঘনাসহ বিভিন্ন নদীতে চাঁদাবাজদের চাহিদামতো অর্থ না দিলেই শ্রমিকদের ওপর নির্যাতন চালানো হয়। শ্রমিকদের রক্ত নিয়ে হোলিখেলার পয়সা কাদের পকেটে যায় সেটা আমরা জানি। আমাদের রাস্তায় নামতে বাধ্য করবেন না।’ তিনি নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার ও রূপগঞ্জ থানার ওসির উদ্দেশে বলেন, ‘রূপগঞ্জের ফকিরখালীতে নৌযান শ্রমিকদের ওপর হামলাকারী জলদস্যু মাসুদ বাহিনীকে আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে গ্রেপ্তার করতে হবে। অন্যথায় আমরা কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি দিতে বাধ্য হব।’

বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন জেলা শাখার সভাপতি সরদার আলমগীর মাস্টারের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরো বক্তব্য দেন বিআইডাব্লিউটিসি ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন চুন্নু মাস্টার, লাইটারেজ জাহাজ শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান মাস্টার, বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের নেতা কবির হোসেন প্রমুখ।

 

 

 



মন্তব্য