kalerkantho


গাজীপুরে অপহৃত সাজিমের লাশ উদ্ধার

মায়ের ওপর ‘প্রতিশোধ’ নিতে শিশুকে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

১৩ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



গাজীপুরে মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত সাজিম হোসেন (৮) নামের শিশুর লাশ গজারি বন থেকে উদ্ধার হয়েছে। গত শনিবার রাতে গাজীপুর সদর উপজেলার হোতাপাড়া এলাকার গজারি বন থেকে লাশটি উদ্ধার হয়। এ ঘটনায় মাহবুব নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

সাজিম হোতাপাড়া গ্রামের গাড়িচালক সেলিম হোসেন ও আরিফা খাতুন দম্পতির ছেলে। আরিফার সঙ্গে পূর্বশত্রুতার জের ধরে তার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে বলে মাহবুব পুলিশকে জানিয়েছে। এর মূল হোতা আরিফার চাচাতো ভাই বাবু। পুলিশ তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে। 

সেলিম হোসেন জানান, চাকরির কারণে তিনি বাড়িতে থাকেন না। গত বৃহস্পতিবার দুই ছেলে জুনায়েত ও সাজিমকে বাড়িতে রেখে পারিবারিক কারণে স্ত্রী আরিফা কাপাসিয়ায় যায়। দুপুরের দিকে অপরিচিত এক ব্যক্তি স্ত্রীর মোবাইলে ফোন করে ছোট ছেলে সাজিমকে অপহরণ করা হয়েছে এবং ছেড়ে দেওয়ার বিনিময়ে এক লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। টাকা না দিলে সাজিমকে খুন করে লাশ গুম করে ফেলবে বলেও হুমকি দেয়।

এ ঘটনায় ওই দিন রাতে সেলিম হোসেন জয়দেবপুর থানায় মামলা করেন। পরে পুলিশ তাঁর ভাগ্নিজামাই মাহবুবকে আটক করে। তার দেওয়া তথ্যে শনিবার রাতে বাড়ির কয়েক শ গজ দূরে গজারি বন থেকে লাশটি উদ্ধার হয়।

হোতাপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) মো. রফিকুল ইসলাম জানান, অভিযোগ ও বিভিন্ন সূত্রের তথ্যের ভিত্তিতে মাহবুবকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে মাহবুব স্বীকার করে যে বৃহস্পতিবার দুপুরে অপহরণের কিছুক্ষণ পর সে এবং শিশুর চাচাতো মামা বাবু মিলে সাজিমকে হত্যা করে। গজারি বনে নিয়ে সে শিশুটির পায়ের ওপর উঠে পড়ে আর বাবু গলা টিপে মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরে ঘটনা ভিন্ন খাতে নেওয়ার জন্য মায়ের কাছে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে।

এসআই রফিকুল আরো জানান, মুক্তিপণ দাবি করলেও মূলত আরিফা খাতুনের সঙ্গে পূর্বশত্রুতার জন্যই বাবু শিশুটিকে হত্যা করে। আরিফা খাতুনকে বিয়ে করতে চেয়েছিল বাবু। কিন্তু সেলিমের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয় সে। এর প্রতিশোধ নিতে মাহবুবকে নিয়ে বাবু এ ঘটনা ঘটিয়েছে। বাবুকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

 



মন্তব্য