kalerkantho


ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

সেই ছাত্রীকে হত্যার হুমকি শিক্ষকের!

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২২ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছেন ছাত্রীর বাবা। শিক্ষক সঞ্জয় কুমার ওই ছাত্রীকে মানসিক নির্যাতন ও হত্যার হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, গত ১৪ জুলাই মানসিক ভারসাম্যহীন ছাত্রীর পক্ষ থেকে তার বাবা মো. জাহাঙ্গীর আলম বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার বরাবর অভিযোগপত্র দেন। এটি গত বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছে। এতে উল্লেখ আছে, শিক্ষকের হয়রানি ও হত্যার হুমকির পর মেয়েটি মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে। তাকে ঢাকায় একটি মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার এই মানসিক ভারসাম্য হারানোর মূল কারণ ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষক সঞ্জয় কুমার। তিনি মৌখিক পরীক্ষায় তাকে চরমভাবে হেনস্তা করেন। এই শিক্ষকের ‘অসৎ চরিত্র ও কুপ্রকৃতির’ প্রতিবাদ করায় মেয়েকে লিখিত পরীক্ষায় ফেল করানো হয়। চিঠিতে বাবা লিখেছেন, ‘আমার মাহারা মেয়েটি হাসপাতালে। আমি এর সঠিক বিচার দাবি করছি।’

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ যৌন হয়রানি বা নির্যাতন প্রতিরোধে রয়েছে একটি যৌন নির্যাতন প্রতিরোধ সেল। তবে ছাত্রীর এই অভিযোগের বিষয়টি জানানো হয়নি সেলপ্রধানকে। এ বিষয়ে সেলপ্রধান অধ্যাপক ড. নাসিম বানু বলেন, ‘অভিযোগের বিষয়টি আমার জানা নেই। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অভিযোগপত্রটি আমাদের কাছে পাঠায়নি। তারা অভিযোগ পাঠালে এবং কাজের নির্দেশ দিলে যৌন নির্যাতন প্রতিরোধ সেল কাজ করবে।’

এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন, ‘অভিযোগপত্রটি আমরা এখনি (শনিবার) আইন সেলের কাছে পাঠাব। তারাই অভিযোগের তদন্ত করবে। এ বিষয়ে গঠিত আগের কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।’

প্রভোস্টের কক্ষে তালা

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাদ্দাম হোসেন হলে প্রভোস্টের কার্যালয়ে গতকাল দুপুরে তালা ঝুলিয়েছে আবাসিক শিক্ষার্থীরা। তাঁদের দাবি নিম্নমানের খাবার, পানি, ওয়াই-ফাই, অপরিষ্কার শৌচাগারসহ বিভিন্ন সমস্যা সমাধান করতে হবে।

আবাসিক শিক্ষার্থী মোশাররফ হোসেন নীল বলেন, ‘আমরা হল কর্তৃপক্ষকে সমস্যার বিষয়ে অভিযোগ করলেও তারা আমলে নেয়নি। কাজেই আমাদের সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত তালা লাগানো থাকবে।’

পরে দুপুর ১টার দিকে হল প্রভোস্ট অধ্যাপক আতিকুর রহমান ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। এ সময় তিনি আগামী বুধবারের মধ্যে হলের সব সমস্যা সমাধানের জন্য শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করেন। পরে শিক্ষার্থীরা প্রভোস্টের কার্যালয়ের তালা খুলে দেয়।



মন্তব্য