kalerkantho


স্বেচ্ছাশ্রম

ডিমলায় তিস্তার তীর রক্ষা বাঁধ মেরামতে কৃষকরা

নীলফামারী প্রতিনিধি   

১৮ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



ডিমলায় তিস্তার তীর রক্ষা বাঁধ মেরামতে কৃষকরা

নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় স্বেচ্ছাশ্রমে তিস্তার তীর রক্ষা বাঁধ গতকাল মেরামত করছে স্থানীয়রা। ছবি : কালের কণ্ঠ

নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় গত বছরে আগস্টে বন্যায় বুড়ি তিস্তা নদীর ডানতীর রক্ষা বাঁধের প্রায় ৩০০ মিটার বিধ্বস্ত হয়।

বাঁধ ভেঙে নদীর পানি ঢুকে উপজেলার নাউতরা ইউনিয়নের সাতজান গ্রামসহ পাশের জলঢাকা উপজেলার বালাগ্রাম ইউনিয়নের চাওড়াডাঙ্গি গ্রামের প্রায় ২০০ একর জমির ফসল নষ্ট হয়।

এ ঘটনার এক বছরেও পানি উন্নয়ন বোর্ড বাঁধটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়নি। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা স্বেচ্ছাশ্রমে এটি মেরামতের কাজ শুরু করে।

কৃষকদের অভিযোগ, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছে একাধিকবার ধরনা দেওয়ার পরেও বাঁধ সংস্কার করেনি তারা। নিরুপায় হয়ে নিজেদের মধ্যে চাঁদা সংগ্রহ করে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধের কাজ শুরু করেছে তারা।

গত সোমবার ওই এলাকায় গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের বাঁধ সংস্কার করতে দেখা গেছে। তারা বিধ্বস্ত স্থানে এরই মধ্যে বাঁশের খুঁটি স্থাপন করেছে। এরপর খুঁটির সঙ্গে বালি ধরে রাখার জন্য জাল টানিয়ে জমির বালি অপসারণ করে সেখানে ফেলছে।

কাজের অগ্রগতির ব্যাপারে সাতজান গ্রামের কৃষক রফিকুল ইসলাম (৬০) বলেন, ‘গত শুক্রবার থেকে কাজ শুরু করেছি। আশা করছি, আগামী ১০ দিনের মধ্যে কাজ শেষ করতে পারব।’

এ বিষয়ে নাউতরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘তাদের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে আমার সামর্থ অনুযায়ী  টাকা-পয়সা দিয়ে সহযোগিতা করেছি। তা ছাড়া প্রতিনিয়ত কাজের খোঁজখবর রাখছি।’

এ বিষয়ে গতকাল মঙ্গলবার নীলফামারী পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী হাফিজুর রহমান বলেন, ‘বাঁধটি মেরামত করার ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। বরাদ্দ না পাওয়ায় কাজটি শুরু করা যাচ্ছে না। তবে স্থানীয়রা স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ সংস্কারের যে উদ্যোগ নিয়েছে, তাতে আমরা কারিগরি সহায়তা দিচ্ছি।’

 



মন্তব্য