kalerkantho


দামুড়হুদা হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা থমকে

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

১৬ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসকসহ নানা সংকট রয়েছে। এ হাসপাতালের একমাত্র অ্যাম্বুল্যান্সটি ১০ বছর ধরে নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। আট বছর ধরে নষ্ট রয়েছে এক্স-রে মেশিনটি। ১৬ জনের স্থলে চিকিৎসক মাত্র চারজন। তা ছাড়া নার্সসহ কর্মকর্তা-কর্মচারী সংকটের কারণে মানসম্পন্ন চিকিৎসাসেবা থমকে রয়েছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ এখানে ৩৮টি পদ শূন্য রয়েছে। আবাসিক মেডিক্যাল কর্মকর্তার মতো গুরুত্বপূর্ণ পদটিও শূন্য। গাইনি চিকিৎসক না থাকায় উপজেলার বেশির ভাগ নারীকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে যেতে হচ্ছে। মেডিসিন বিভাগের জুনিয়র কনসালট্যান্ট ও গাইনি বিভাগের জুনিয়র কনসালট্যান্ট থাকলেও দুজনই সাময়িক আদেশে চুয়াডাঙ্গায় কর্মরত। একইভাবে সার্জারি বিভাগের জুনিয়র কনসালট্যান্টের একমাত্র পদের চিকিৎসক প্রেষণে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে কর্মরত। হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা কার্পাসডাঙ্গা গ্রামের আজিজুল হক বলেন, ‘উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হলেও এখানে আধুনিক চিকিৎসার কোনো ছোঁয়া লাগেনি। ভবনের মধ্যে স্যাঁতসেঁতে পরিবেশ। সব পরীক্ষা বাইরে থেকে করাতে হয়।’

দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু হেনা মোহাম্মদ জামাল বলেন, ‘শূন্য পদ, অ্যাম্বুল্যান্স ও এক্স-রে মেশিনের ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।’



মন্তব্য