kalerkantho


দুই ছাত্রীসহ ধর্ষণের শিকার ৪

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

২৪ জুন, ২০১৮ ০০:০০



ফরিদপুরে দুই শিশু, রাজশাহীর তানোরে কলেজছাত্রী ও ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলায় কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সিরাজগঞ্জে তাড়াশে বলাৎকারের শিকার হয়েছে একটি শিশু। নড়াইল সদরে গণধর্ষণ মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ এবং লোহাগড়ায় শিশু ধর্ষণের ঘটনায় মামলা করা হয়েছে। কালের কণ্ঠ’র নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

ফরিদপুর : বোয়ালমারী উপজেলার সাতৈর ইউনিয়নে প্রথম শ্রেণিপড়ুয়া এক শিশুকে (৭) ধর্ষণে অভিযুক্ত আব্বাস শেখকে (১৬) গত শুক্রবার রাতে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এর আগে একই রাতে শিশুটির বাবা বোয়ালমারী থানায় ইছাখালী গ্রামের আব্বাসকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন।

 

থানার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ১৭ জুন সন্ধ্যায় ইছাখালী গ্রামে মাদরাসাছাত্র আব্বাস ওই শিশুকে কৌশলে ডেকে নিয়ে বাড়ির পাশে ক্ষেতে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। শিশুটি রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়িতে এসে মা-বাবাকে ঘটনাটি জানায়। শিশুটিকে প্রথমে বোয়ালমারীতে এক চিকিৎসকের কাছে, পরে বোয়ালমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দিয়ে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সে সেখানে চিকিৎসাধীন। সূত্র জানায়, স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল টাকা দিয়ে ঘটনাটি মীমাংসার চেষ্টা করেছিল।

বোয়ালমারী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শহীদুল ইসলাম জানান, শিশুটির ক্ষতস্থানে ৯টি সেলাই লেগেছে। গতকাল শনিবার আদালতের নির্দেশে আব্বাস শেখকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলায় অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রের বিরুদ্ধে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষণের শিকার ছাত্রীটি বর্তমানে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনার পর থেকে ছেলেটি পলাতক রয়েছে।

আলফাডাঙ্গা থানার ওসি মো. নাজমুল করিম জানান, কেউ থানায় কোনো অভিযোগ করেনি। তবে ঘটনা জেনে পুলিশ অভিযুক্তকে ধরার চেষ্টা চালাচ্ছে।

তানোর (রাজশাহী) : তানোর উপজেলায় কলেজছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। ওই ছাত্রী (২৫) গত শুক্রবার রাতে তিনজনকে আসামি করে তানোর থানায় মামলাটি করেন। পুলিশ রাতেই মূল অভিযুক্ত উপজেলার গাংঘাটি পূর্বপাড়া গ্রামের সুরজিত কুমার শাহ্ মানিককে (৩০) গ্রেপ্তার করে। গতকাল তাঁকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। মামলার এজাহারের বরাত দিয়ে তানোর থানার ওসি রেজাউল ইসলাম জানান, মানিকের সঙ্গে ওই ছাত্রীর দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন মানিক। সর্বশেষ শুক্রবার রাতে মানিক তাঁর বাড়িতে ওই ছাত্রীকে কৌশলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন। ছাত্রী বিয়ের কথা বললে তাঁকে বাড়ি থেকে বের করে দেন মানিক। বিষয়টি গ্রামবাসী টের পেয়ে মানিককে ধরে বেঁধে রেখে থানায় খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে মানিককে আটক করে থানায় নেয়।

ঠাকুরগাঁও : পীরগঞ্জ উপজেলার বৈরচুনা ইউনিয়নে দশম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত জাহিদুল ইসলাম জাহিদের (১৮) নামে ১৩ জুন পীরগঞ্জ থানায় মামলা করেন ছাত্রীটির বাবা। ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ, জাহিদ বৈরচুনা বাজার এলাকার প্রভাবশালী নজরুল ইসলামের ছেলে। মামলাটি তুলে নিতে জাহিদের পরিবারই জাহিদকে অন্যত্র সরিয়ে রেখে অপহরণ মামলা করার হুমকি দিচ্ছে এবং ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।

নির্যাতিত ছাত্রীর পরিবার জানায়, জাহিদ দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রীটিকে বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসার পথে বন্ধুবান্ধবসহ অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে এবং বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিরক্ত করছিল। প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় মেয়েটিকে ভয়ভীতি দেখাতেন জাহিদ। গত ৮ জুন ছাত্রীটিকে বাড়িতে রেখে দাওয়াত খেতে পাশের গ্রামে যান তার মা-বাবা। সন্ধ্যার পর মেয়েটিকে একা পেয়ে ঘরে ঢুকে ধর্ষণ করেন জাহিদ। পরে মেয়েটির মা-বাবা ও প্রতিবেশীরা এসে ঘরে জাহিদকে দেখতে পায়। জাহিদের মা-বাবা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের ঘটনাস্থলে আসতে বললে তাঁরা বিষয়টি গুরুত্ব দেননি। এদিকে জাহিদ মেয়েটিকে বিয়ে করার আশ্বাস দিয়ে বাড়িতে চলে যান। পরে জাহিদের পরিবার স্থানীয় কিছু লোকের মাধ্যমে বিষয়টি মীমাংসার নামে টাকা দেওয়ার প্রলোভন দেখায়। ১৪ জুন ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ছাত্রীটির ডাক্তারি পরীক্ষা হয়েছে। হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. সুব্রত কুমার সেন জানান, পরীক্ষার প্রতিবেদন পেতে কয়েক দিন সময় লাগবে।

পীরগঞ্জ থানার ওসি আমিরুজ্জামান জানান, ধর্ষণ অভিযোগটির তদন্ত চলছে। আসামিকে ধরতে কাজ করছে পুলিশ।

নড়াইল : লোহাগড়ায় একটি শিশুকে (৫) ধর্ষণের দুই দিন পর টানাপড়েনের মধ্য দিয়ে গতকাল থানায় মামলা করেছেন শিশুটির মা। এর আগে শুক্রবার নড়াইলের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার মো. মেহেদি হাসান শিশুটির বাড়িতে গিয়ে তাদের আশ্বস্ত করেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লোহাগড়ার মশাগুনি এলাকায় দোকানে আইসক্রিম কিনতে গিয়ে দোকানির নির্যাতনের শিকার হয় শিশুটি।

সিরাজগঞ্জ : তাড়াশ পৌর সদরে গতকাল সকালে সাত বছরের ছেলেশিশুকে যৌন নির্যাতন করা হয়। এতে গুরুতর অসুস্থ শিশুটিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এলাকাবাসী অভিযুক্ত নাজেম আলীকে (১৭) আটক করে পুলিশে দিয়েছে। নাজেমের বাড়ি তাড়াশ পৌর সদরের ওয়াপদা বাঁধপাড়ায়।

 



মন্তব্য