kalerkantho


ভোলা ও কুমিল্লা

বিদ্যালয়ে রাজনৈতিক সভা, বিয়ের অনুষ্ঠান

ভোলা ও দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

২৪ জুন, ২০১৮ ০০:০০



ভোলায় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে রাজনৈতিক সভা এবং কুমিল্লায় একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বিয়ের অনুষ্ঠান হয়েছে। ভোলা সদর উপজেলার পশ্চিম ইলিশা ইউনিয়নের পশ্চিম ইলিশা আমিন বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে কর্মিসভা করেছে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন বিজেপি। আর কুমিল্লার তিতাস উপজেলার মাছিমপুর আর আর ইনস্টিটিউশনে ক্লাস বন্ধ রেখে উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি মো. মোয়াজ্জেম হোসেন সরকারের ছেলের বউভাত অনুষ্ঠান হয়েছে।

ভোলায় তিনতলা সাইক্লোন সেন্টার কাম স্কুলটি পুরোটাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য ব্যবহার করা হয়। পাশেই রয়েছে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। স্কুলটির খোলা শ্রেণিকক্ষ ও খেলার মাঠ থাকলেও সেখানে কর্মিসভা না করে স্কুলের দ্বিতীয় তলার শ্রেণিকক্ষে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে বিজেপির ওই কর্মিসভা করা হয়। আর এতে সভাপতিত্ব করেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক হামিদ বাঘার ছেলে হান্নান। তার পাশাপাশি ওই সভার প্রতিনিধিত্ব করেন প্রধান শিক্ষকের মামাতো শ্যালক মো. রনি। সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, ইউনিয়ন বিজেপির শতাধিক কর্মী ওই সভায় অংশ নেয়।

কর্মিসভা শেষে ইউনিয়ন ছাত্রসমাজের নেতা রনি ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে লিখেন, ‘আজ আমাদের পশ্চিম ইলিশা বিজেপির সকল অঙ্গসংগঠনের নেতাদের অংশগ্রহণে আমাদের ইউনিয়ন বিজেপিকে আরো সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে এক মতবিনিময়সভা অনুষ্ঠিত হয়।’

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘আমি জেনেছি, স্কুলটির মধ্যে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি-পার্থ) একটি কর্মিসভা হয়েছে।’

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হামিদ বাঘার কাছে জানতে চাইলে তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমি স্কুলের চাবি কাউকে দেইনি। তবে এর একটি চাবি সহকারী এক শিক্ষকের কাছে আছে, তাঁর কাছ থেকে নিতে পারে।’

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সামসুল ইসলাম দেওয়ান বক্তব্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র হালদার বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে অবগত নই। রবিবার অফিস খোলার পর এর বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

কুমিল্লায় স্কুলে বিয়ের অনুষ্ঠান : এদিকে রোজার ছুটির পর গতকাল খোলা তারিখে কুমিল্লার তিতাস উপজেলার মাছিমপুর আর আর ইনস্টিটিউশনে ক্লাস না করে বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে সকাল ১১টার দিকে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি মো. মোয়াজ্জেম হোসেন সরকারের ছেলের বউভাত অনুষ্ঠানের জন্য স্কুল মাঠে প্যান্ডেল সাজানো রয়েছে।

ক্লাস করতে আসা বিভিন্ন শ্রেণির শিক্ষার্থীরা ফিরে যাওয়ার সময় কারণ জানতে চাইলে তারা জানায়, স্কুল খোলা ছিল, কিন্তু এসে দেখে স্কুল মাঠে বিএনপি নেতার ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠান। প্রধান শিক্ষক বলেছেন, ক্লাস হবে না। তাই ফিরে যাচ্ছে।

মোবাইল ফোনে মাছিমপুর, বলরামপুর, নাগেরচর, জয়পুর ও কদমতুলি গ্রামের একাধিক অভিভাবক অভিযোগ করেন, পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির কারণে স্কুলে বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়েছে। এ ক্ষেত্রে প্রধান শিক্ষকের উদাসীনতাও দায়ী।

স্কুলের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আলম সরকারের কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, সামাজিক বিষয়টি বিবেচনা করেই মাঠে অনুষ্ঠানের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহফুজুর রহমান চৌধুরী বলেন, শুক্রবার ছুটির দিনে অনুষ্ঠানের কথা ছিল, ওই দিন অনুষ্ঠান না হওয়ায় গতকাল হয়েছে। তিনি দাবি করেন, ‘রমজান মাসের ১৫ দিন আমি স্কুল খোলা রেখেছি। সে কারণে এ দিনটি সংরক্ষিত ছুটি ঘোষণা করেছি।’

তবে একটি সূত্র জানায়, দায়মুক্তির জন্য গতকাল সকালে সংরক্ষিত ছুটির জন্য আবেদন লিখিয়ে আনেন প্রধান শিক্ষক। তবে স্কুল বন্ধের বিষয়ে অন্য শিক্ষক, শিক্ষার্থী বা অভিভাবক কেউ জানতেন না।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আনোয়ার চৌধুরী গতকাল বলেন, ‘বিষয়টি আমি জেনেছি এবং প্রধান শিক্ষক বলেছেন তিনি নাকি সংরক্ষিত ছুটি দিয়েছেন। তবে আজকে (গতকাল) এ ছুটি ঘোষণা করা ঠিক হয়নি।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে সাংবাদিকদের জানান।



মন্তব্য