kalerkantho


পশুর চ্যানেলে কয়লাবোঝাই কার্গোডুবি

উদ্ধারকাজ চলছে লাগবে ২৫ দিন

বাগেরহাট প্রতিনিধি   

২২ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলে সুন্দরবনের মধ্যে কয়লা নিয়ে ডুবে যাওয়া কার্গো (মালবাহী জাহাজ) উদ্ধারকাজ চলছে। উদ্ধারকারীরা গতকাল শনিবার সকালে ভাটার সময় দ্বিতীয় দিনের মতো কার্গোটি থেকে ড্রেজারের মাধ্যমে কয়লা অপসারণ করেন। প্রচণ্ড স্রোত ও পানির চাপ বেশি থাকায় উদ্ধারকারীদের অনেকটা বেগ পেতে হচ্ছে। মোংলার বেসরকারি নৌযান উদ্ধারকারী প্রতিষ্ঠান ‘হোসেন স্যালভেজ ইন্টারপ্রাইজ’কে কার্গোটি উত্তোলনের দায়িত্ব দিয়েছে মালিকপক্ষ।

এমভি বিলাস নামে ৭৭৫ মেট্রিক টন কয়লাবোঝাই কার্গোটি গত ১৪ এপ্রিল রাত ১০টার দিকে পশুর চ্যানেলে সুন্দরবনের হারবারিয়া ইকো ট্যুরিজম কেন্দ্রের কাছে ডুবে যায়।

উদ্ধার প্রক্রিয়া : উদ্ধারকাজে অংশ নেওয়া ডুবুরিদলের প্রধান সোহরাব হোসেন মোল্যা জানান, মালিকপক্ষের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী শুক্রবার বিকেল থেকে তাঁরা কার্গো উদ্ধারকাজ শুরু করেছেন। একটি করে বলগেট, ড্রেজার, লঞ্চসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম নিয়ে উদ্ধার তত্পরতা চালানো হচ্ছে। উদ্ধারকাজে ১১ ডুবুরিসহ ৩১ জন অংশ নিয়েছেন। তাঁরা প্রথমে ড্রেজারের মাধ্যমে কার্গোটি থেকে কয়লা অপসারণ করে বলগেটে রাখছেন। এভাবে কার্গোটি হালকা করা হবে। পরে অন্য দুটি নৌযানের মাধ্যমে পানির নিচ থেকে কার্গোটি টেনে তীরে তোলা হবে।

সোহরাব আরো জানান, জোয়ারের সময় কার্গোটির ওপর দিয়ে ১২ ফুট উচ্চতায় পানি প্রবাহিত হচ্ছে। কয়েক দিন ধরে ডুবে থাকায় কার্গোটির ওপর অনেক পলিমাটি জমেছে। কার্গোটি উদ্ধার করতে প্রায় ২৫ দিন সময় লাগবে।

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মাহমুদুল হাসান জানান, সুন্দরবনের মধ্যে কয়লাবোঝাই কার্গো ডুবে থাকায় সুন্দরনের জীববৈচিত্র্যের ওপর কী ধরনের ক্ষতির প্রভাব পড়তে পারে—তা নিয়ে তাঁরা উদ্বিগ্ন।

মোংলা বন্দরের হারবার মাস্টার কমান্ডার অলিউল্লাহ জানান, কার্গোটি মোংলা বন্দর চ্যানেলের বাইরে (১৪ নটিক্যাল মাইল দূরে) ডুবে আছে। পশুর চ্যানেল দিয়ে মোংলা বন্দরে নির্বিঘ্নে জাহাজ চলাচল করছে।

 


মন্তব্য