kalerkantho


৬৬ বছর পর কালিয়াকৈরে হলো শহীদ মিনার

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ভাষা আন্দোলনের ৬৬ বছর পর গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলা চত্বরে নির্মিত হয়েছে শহীদ মিনার। তাই এবার এখানেই যথাযোগ্য মর্যাদায় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবস পালন করবে কালিয়াকৈরবাসী।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, ১৯৮৩ সালে কালিয়াকৈর উপজেলা গঠিত হয়। উপজেলা পরিষদ গঠনের ৩৫ বছর, স্বাধীনতার ৪৭ বছর ও ভাষা আন্দোলনের ৬৬ বছর পেরিয়ে গেলেও উপজেলা পরিষদ চত্বরে কোনো শহীদ মিনার ছিল না। এ কারণে উপজেলা প্রশাসন প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে গোলাপনবী মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে গিয়ে দিবসটি পালন করে আসছিল। গত আড়াই মাস আগে গাজীপুর জেলা পরিষদের অর্থায়নে উপজেলা চত্বরে কালিয়াকৈর উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়। প্রথমবারের মতো এখানে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবস পালন করবে এলাকাবাসী।

জেলা ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, গাজীপুর জেলা পরিষদের অর্থায়নে শহীদ মিনারটি নির্মাণ করা হয়েছে। এতে সাড়ে ১২ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। পাঁচটি মিনারের প্ল্যাটফর্ম ৪৫ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৩০ ফুট প্রস্থবিশিষ্ট। সর্বোচ্চ মিনারের উচ্চতা ১৮ ফুট। এর দুই পাশের চারটি মিনারের উচ্চতা যথাক্রমে ১২ ও ১০ ফুট।

গাজীপুর জেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘ঢাকা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারকে অনুসরণ করে কালিয়াকৈর উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারটি নির্মাণ করা হয়েছে। এখন চলছে পরিপাটির কাজ।’ কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘আগে কালিয়াকৈর উপজেলা পরিষদ চত্বরে কোনো শহীদ মিনার ছিল না। ফলে অন্য স্থানে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবস পালন করতে হয়েছে। এবার কালিয়াকৈরে উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়েছে। আসন্ন ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবস এখানেই পালন করা হবে।’



মন্তব্য