kalerkantho


চট্টগ্রামে বাসার কাছেই খুন স্কুলছাত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



চট্টগ্রামে বাসার কাছেই খুন স্কুলছাত্র

আদনান ইসফাত

চট্টগ্রামে আদনান ইসফাত (১৫) নামের এক স্কুলছাত্রকে ছুরি মেরে খুন করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মহানগরের জামালখান এলাকায় বাসার কাছেই ডা. খাস্তগীর স্কুলের সামনে এই ঘটনা ঘটে।

ইসফাত চট্টগ্রামের সরকারি কলেজিয়েট স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র। তার বাবা প্রকৌশলী আদনান আখতারুল আজম খাগড়াছড়ি এলজিইডির প্রকৌশলী। তাদের বাসা ঘটনাস্থলের কাছেই আম্বিয়া ভবনে।

ইসফাতের ফেসবুক আইডি ঘেঁটে পুলিশ কর্মকর্তারা মনে করছেন, ইসফাত স্কুলছাত্র হলেও রাজনৈতিকভাবে ছাত্রলীগের সঙ্গে যুক্ত ছিল। তার রাজনৈতিক গুরু শাহজাদ নাবিয়ান চট্টগ্রামের একজন ক্যাডার হিসেবে পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী। এ কারণে এই হত্যার পেছনে বন্ধুদের মধ্যে দ্বন্দ্ব, রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব কিংবা কিশোর প্রেম, খেলা নিয়ে বিরোধসহ নানা বিষয় খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, পিঠে ছুরিকাহত ইসফাতকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে তিন শিক্ষার্থী চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এরপর মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, যে তিনজন ইসফাতকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিল তাদের একজন রাফিন ইকবাল। সে ইসফাতদের প্রতিবেশী।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির কনস্টেবল আবদুর রহিম জানান, ইসফাতকে হাসপাতালে আনার পর তিনজনকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নিয়েছে। এদের একজনের পকেটে একটি চেইন পাওয়া গেছে।

ইসফাতের মা শাহজাহান বেগম জানান, দুপুরে মহসিন কলেজ মাঠে খেলতে যাওয়ার কথা বলে ইসফাত বাসা থেকে বের হয়। এর কিছুক্ষণ পরই তিনি ছেলের মৃত্যুর সংবাদ পান। তবে কে কেন ইসফাতকে ছুরিকাঘাত করেছে, সে বিষয়ে স্পষ্ট কিছু বলতে পারেনি তিনি।

সিসিটিভি ক্যামেরায় পাওয়া ভিডিও ফুটেজের তথ্য উল্লেখ করে চকবাজার থানার ওসি নূরুল হুদা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ইসফাতকে চার-পাঁচজনে ধাওয়া করে ডা. খাস্তগীর স্কুলের দিকে নিয়ে যেতে দেখা গেছে। আর ডা. খাস্তগীর স্কুলের সামনে ছুরিকাহত অবস্থায় ইসফাতকে পাওয়া যায়।’

এক প্রশ্নের জবাবে ওসি বলেন, ‘ঘটনাস্থল চকবাজার থানা নয়, কোতোয়ালি থানা এলাকা। তাই এ বিষয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলা হতে পারে।’

হাসপাতালে নেওয়া তিন শিক্ষার্থী পুলিশকে জানিয়েছে, তারা দুপুরে চার-পাঁচজন যুবককে দৌড়াতে দেখে। এ সময় সামনের দিকে একজন এবং তার পেছনে অন্যরা ছিল। ধাওয়াকারীদের হাতে ছুরি ও পিস্তল দেখা গেছে বলেও জানিয়েছে তারা।



মন্তব্য