kalerkantho


গাজীপুরে ট্রেন-ভ্যান সংঘর্ষে নিহত ২

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



গাজীপুরে ট্রেন-ভ্যান সংঘর্ষে নিহত ২

গাজীপুরে ট্রেন ও কাভার্ড ভ্যানের সংঘর্ষে দুই যুবক নিহত ও তিনজন আহত হয়েছেন। গত মঙ্গলবার রাতে ঢাকা-রাজশাহী রুটের গাজীপুর সিটি করপোরেশনের (গাসিক) সালনা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনাকবলিত ট্রেনটি সরিয়ে নিলে প্রায় পৌনে তিন ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল শুরু হয়। সংঘর্ষের ঘটনায় রেলওয়ে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

নিহতদের মধ্যে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তাঁর নাম মো. সেলিম উদ্দিন (২৭)। বাড়ি ময়মনসিংহের ফুলপুর থানার সনচর গ্রামে। তিনি সালনার টিএম ফ্যাশন কারখানায় লোডার পদে চাকরি করতেন। নিহত অন্যজনের বয়স ৩০ বছরের মতো। আহতরা হলেন সালনার মো. ফারুকের ছেলে আরমান (২৫) ও নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে সাইফুল ইসলাম (২৭)। অন্য আহতের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।

গাসিকের স্থানীয় কাউন্সিলর তানভীর আহমেদ ও স্থানীয়রা জানায়, টিএম ফ্যাশন কারখানার ঢাকাগামী একটি মালবাহী কাভার্ড ভ্যান জোলারপাড়-সালনা সড়ক দিয়ে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের দিকে যাচ্ছিল। ভ্যানটি রাত সাড়ে ৯টার দিকে সালনা মোল্লাপাড়া এলাকায় একটি অরক্ষিত লেভেলক্রসিং পার হওয়ার সময় খুলনাগামী চিত্রা ট্রেনের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ভ্যানটি দুমড়ে-মুচড়ে রেললাইনের পাশে পড়ে এবং ট্রেনটি প্রায় আধাকিলোমিটার দূরে টেকিবাড়ি এলাকায় গিয়ে থেমে যায়।

জয়দেবপুর রেলওয়ে পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (এসআই) এস এম রকিবুল হক জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী ট্রেনের সঙ্গে কভার্ড ভ্যানের সংঘর্ষে এক যুবক (৩০) নিহত এবং চারজন আহত হন। স্থানীয়রা সেলিম উদ্দিন, সাইফুল ইসলাম, আরমানসহ চারজনকে উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সেলিমকে মৃত ঘোষণা করেন। আহতদের মধ্যে দুজনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। ঘটনাস্থলে মারা যাওয়া যুবক ট্রেনের ইঞ্জিনের সামনে বসে যাচ্ছিলেন বলে রকিবুলের ধারণা। তিনি জানান, দুর্ঘটনায় ট্রেনটির ইঞ্জিন বিকল ও কাভার্ড ভ্যানটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এতে ওই পথে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায় এবং আশপাশের স্টেশনগুলোতে কয়েকটি ট্রেন যাত্রাবিরতি করে।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক মো. নাসিব ইরশাদুল্লাহ জানান, ওই ঘটনায় রাতে চারজনকে হাসপাতালে আনা হয়। এর মধ্যে একজন ছিলেন মৃত। গুরুতর আহত দুজনকে ঢামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্যজনকে এ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

জয়দেবপুর রেলওয়ে জংশনের স্টেশন মাস্টার মো. শাহজাহান মিয়া সাংবাদিকদের জানান, দুর্ঘটনার পর ওই পথে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। অন্য একটি ইঞ্জিন দিয়ে দুর্ঘটনাকবলিত ট্রেনটি জয়দেবপুর জংশনে সরিয়ে নেওয়া হলে রাত ১২টা ২০ মিনিটের দিকে ট্রেন চলাচল শুরু হয়।

বাংলাদেশ রেলওয়ে জয়দেবপুর কার্যালয়ের সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আব্দুর রশিদ জানান, ঘটনা তদন্তে পাকশীর এটিও মো. নাসির উদ্দিনকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। কমিটিকে সাত দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।



মন্তব্য