kalerkantho

জমি নিয়ে বিরোধ

বদরগঞ্জে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, রংপুর   

২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রংপুরের বদরগঞ্জে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে কৃষক আসাদুজ্জামান আসাদকে (৩৬) কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটে গত রবিবার বিকেলে উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের দিলালপুর সুতারপাড়া এলাকায়। এ ঘটনায় রাতে বদরগঞ্জ থানায় আসাদের স্ত্রী রাশেদা বেগম ছয়জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন।

এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন ধরে আসাদের চাচাতো ভাই নাজমুল হকের সঙ্গে বাড়ির পাশের জমি নিয়ে বিরোধ চলছে। এ নিয়ে কয়েক দফা সালিস বৈঠক হলেও সুরাহা হয়নি। গত রবিবার বিকেলে দলবল নিয়ে আসাদের লিচু বাগানের বেশ কিছু গাছ কেটে দেন নাজমুলের ছেলে সুজন মিয়া (২২)। এতে বাধা দেন আসাদ। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হয়। একপর্যায়ে সুজন ধারালো অস্ত্র দিয়ে আসাদের মাথায় কোপ মারেন। এতে গুরুতর আহত আসাদকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে রাতে মৃত্যু হয় তাঁর।

বদরগঞ্জ থানার ওসি আখতারুজ্জামান প্রধান বলেন, লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

বানিয়াচংয়ে সংঘর্ষে আহত ১৫

এদিকে হবিগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে জমি নিয়ে বিরোধে দুই পক্ষের সংঘর্ষে টেঁটাবিদ্ধসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। আহত সাতজনকে হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। গতকাল সোমবার সকালে উপজেলার মন্দরী ইউনিয়নের সুনামপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্র জানায়, সুনামপুরের আমির আলীর ছেলে শের আলীর সঙ্গে একই গ্রামের আব্দুন নুরের ছেলে আউয়াল মিয়ার দীর্ঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলছে। এর জেরে গতকাল সকালে তাদের মধ্যে বাগিবতণ্ডা ও হাতাহাতি হয়। পরে উভয় পক্ষের লোকজন দেশি অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়ায়। খবর পেয়ে বানিয়াচং থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

টেঁটাবিদ্ধ তাহের আলী (৬০), ছিফত আলী (৬২), শের আলী (৪০), আউয়াল মিয়া (৫০), কাইয়ুম মিয়া (৩২), রহমত আলী (৪৫) ও কামাল মিয়াকে (২৫) হবিগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বানিয়াচং থানার ওসি মোজাম্মেল হক জানান, পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মন্তব্য