kalerkantho


বাহুবলে বিদ্যুৎ সাবস্টেশনে ডাকাতের হানা, আহত ৫

সোনারগাঁয় ডিবি পরিচয়ে চার বাড়িতে ডাকাতি

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি ও সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



হবিগঞ্জের বাহুবলে পল্লী বিদ্যুতের নির্মাণাধীন সাবস্টেশনে হানা দিয়ে শ্রমিকদের মারধর করে টাকা ও মোবাইল ফোনসেট লুটে নিয়েছে ডাকাতরা। আহত হয়েছেন সাবস্টেশনে কর্মরত পাঁচজন শ্রমিক। ঘটনাটি ঘটে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে উপজেলার মুগকান্দি গ্রামে গত বৃহস্পতিবার রাতে। একই রাতে গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ পরিচয়ে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয় চারটি বাড়িতে ডাকাতি হয়েছে।

বাহুবলে তিন শ্রমিক গুরুতর আহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার চড়বাড়িয়া গ্রামের উসমান বেপারীর ছেলে শরিয়ত আলী (৩৬), নোয়াখালীর কবিরবাদ উপজেলার মধ্যসুন্দরপুর গ্রামের কালা মিয়ার ছেলে রমজান মিয়াকে (২০) হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালে এবং বাহুবলের রাঘবপুর গ্রামের মৃত আকল আলীর ছেলে পাহারাদার মো. ইউনুছ আলীকে (৫৫) বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বাহুবল সদর থেকে দেড় কিলোমিটার উত্তরে মুগকান্দিতে হবিগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির একটি সাবস্টেশনের নির্মাণকাজ চলছে। বৃহস্পতিবার রাতে শ্রমিকরা ট্রান্সফরমারসহ বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ট্রাক থেকে নামানোর কাজ করেন। কর্মরত শ্রমিক ভোলা জেলা সদরের শ্যামপুর গ্রামের মিজানুর রহমান (৪৫) জানান, তাঁরা রাত ২টার দিকে কাজ শেষে ঘুমানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। তখন ১৫-১৬ জনের মুখোশধারী ডাকাতদল সেখানে হানা দেয়। ডাকাতরা শ্রমিকদের হাত, পা ও মুখ বেঁধে মারধর করে এবং মোবাইল ফোনসেট ও টাকা লুটে নেয়। মিজান দাবি করেন, তাঁর সঙ্গে থাকা ৬৫ হাজার টাকা লুটে নিয়েছে ডাকাতরা। ডাকাতরা চলে যাওয়ার পর আশপাশের লোকজন এসে শ্রমিকদের উদ্ধার করে। খবর পেয়ে রাতেই বাহুবল মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের হাসপাতালে পাঠায়।

এদিকে সোনারগাঁ উপজেলার বারদী ইউনিয়নের চকবাজার আলমদী, রিবর ও সনমান্দি ইউনিয়নের ফতেপুর গ্রামে ডাকাতি হয়। ডাকাতরা চার বাড়ির সবাইকে অস্ত্রের মুখে হাত-পা বেঁধে ২৩ ভরি স্বর্ণালংকার, টাকাসহ প্রায় ১৬ লাখ টাকার মালপত্র লুটে নিয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তরা দাবি করেছেন। এ ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় গতকাল শুক্রবার মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

এলাকাবাসী জানায়, রাত সোয়া ২টার দিকে ২০-২৫ জন মুখোশধারী ডিবি পুলিশ পরিচয়ে চকবাজার আলমদী গ্রামের অস্ট্রিয়াপ্রবাসী হাবিবুল্লাহর বাড়িতে হানা দিয়ে সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা ও ১৮ ভরি সোনা, পাঁচটি মোবাইল ফোনসেট লুট করে। এ ছাড়া রিবর গ্রামের বাসিন্দা বারদী লোকনাথ আশ্রম কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক রঞ্জিত সাহার বাড়ি থেকে ডাকাতরা ৪৫ হাজার টাকা, তিন ভরি সোনা, পাঁচটি মোবাইল ফোনসেট লুটে নেয়। ডাকাতদল রঞ্জিত সাহার ভাতিজা শ্যামল সাহার ঘরে আসবাবপত্র ভাঙচুর করেছে। একই গ্রামে গার্মেন্টকর্মী জীবন মিয়ার ঘর থেকে এক ভরি সোনা, ফতেপুরে পুলিশ কনস্টেবল আজহার মিয়ার বাড়ি থেকে এক ভরি সোনা, ১৩ হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ফোনসেট লুট করে ডাকাতরা।

 



মন্তব্য