kalerkantho


ভ্রাম্যমাণ আদালত

১২ জনের কারাদণ্ড, ছয় প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

চুয়াডাঙ্গা ও সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি   

২২ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা থানা পুলিশ মাদক সেবনের অভিযোগে ১৪ জনকে আটক করে। তাদের মধ্যে আটজনকে ১৫ দিন করে ও দুজনকে সাত দিন করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বাকি চারজনকে মুচলেকায় ছেড়ে দেওয়া হয়। গত সোমবার রাত ৮টার দিকে দামুড়হুদা বাসস্ট্যান্ডে এ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রফিকুল হাসান।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালপাড়ার সুমন আলী (১৮), পৌর এলাকার কেদারগঞ্জ বাহাদুরপাড়ার আতাউর রহমান জনি (১৮), সুমিরদিয়া গ্রামের সোহেল রানা (১৮), কেদারগঞ্জ নতুন বাজারের ইমরুজ হোসেন (২১), শহরের মাস্টারপাড়ার বাদশা হোসেন (২৫) ও মানিক আলী (২৭), জিনতলাপাড়ার শাহানুর রহমান সোহান (১৯) ও দামুড়হুদার ফকিরপাড়ার শম্ভু কুমার পালকে (২৪) ১৫ দিন করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। জয়রামপুর গ্রামের ফকির মোহাম্মদ (৩০) ও জাহাঙ্গীর আলমকে (৩৪) সাত দিন করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

দামুড়হুদা থানার ওসি আকরাম হোসেন জানান, চুয়াডাঙ্গা থেকে অনেক যুবক মোটরসাইকেলযোগে জেলার সীমান্ত এলাকা দর্শনায় যায় মাদক সেবন করতে। সোমবার বিকেলে দর্শনায় ঝটিকা অভিযান চালিয়ে পুলিশ ১৪ জনকে আটক করে।

সিরাজগঞ্জে তিনটি অভিজাত রেস্তোরাঁ ও তিনটি বেসরকারি হাসপাতালকে সাড়ে ২২ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ছাড়া দুজনকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। গত সোমবার বিকেল থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ মহাসড়কের হাটিকুমরুল গোলচত্বর এলাকায় র‌্যাব সদর দপ্তরের আইন কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. গাউছুুল আজমের নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়।

দণ্ডিতরা হলেন মন্টু সেখ (২৮) ও মাহমুদুল হাসান (৩০)। মাদক বিক্রির অভিযোগে মন্টুকে ছয় মাসের ও সনদ না থাকায় সাখাওয়াত মেমোরিয়াল হাসপাতালের ল্যাব টেকনোলজিস্ট হাসানকে এক মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

গাউছুল আজম জানান, অভিযানে বাসি খাবার রাখা, অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ ও কর্মচারীদের সনদ না থাকার দায়ে হোটেল এরিস্ট্রোক্রেটকে দেড় লাখ, ফুড ভিলেজকে সাড়ে চার লাখ ও হানিফ হাইওয়ে রেস্টুুরেন্টকে চার লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এ সময় ১০টি ইয়াবাসহ ‘মাদক কারবারি’ মন্টু সেখকে (২৮) আটক করা হয়। এ ছাড়া মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ও কেমিক্যাল রাখার দায়ে সাখাওয়াত মেমোরিয়াল হাসাপাতালকে ছয় লাখ, চিকিৎসক ও নার্সবিহীন হাসপাতাল পরিচালনার অভিযোগে আল-মদিনা হাসপাতালকে তিন লাখ এবং মা জেনারেল হাসপাতালকে সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এ সময় র‌্যাব-১২ সিরাজগঞ্জ ক্যাম্পের স্কোয়াড কমান্ডার সিনিয়র এএসপি তানভীর ভুইয়া, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিক্যাল অফিসার সৌমিত্র বসাক, বিএসটিআই রাজশাহী অঞ্চলের পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক নাঈম মো. কাজী নুরুন্নবী উপস্থিত ছিলেন।

 


মন্তব্য