kalerkantho


নীলফামারীতে গুদামে রহস্যজনক আগুন

পুড়ল ১৩ ট্রাক ঝুট

নীলফামারী প্রতিনিধি   

২১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



নীলফামারীতে আগুনে পুড়েছে ১৩ ট্রাক ঝুট কাপড়সহ অন্যান্য ঝুট। গত রবিবার রাতে গভীর রাতে জেলা শহরের হাড়োয়া আদর্শপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাটিকে রহস্যজনক বলে দাবি করেছেন ওই ঝুটের মালিক ব্যবসায়ী দেওয়ান সাগর আহমেদ।

এলাকাবাসী জানায়, নীলফামারী পৌরসভার মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদের মালিকানাধীন হাড়োয়া আদর্শপাড়া গ্রামের একটি বাড়ির টিনশেড গুদামে ব্যবসায়িক কারণে কাপড়সহ অন্যান্য ঝুট (কাগজ, চামড়া) রাখেন তাঁর ভাতিজা দেওয়ান সাগর আহমেদ। রবিবার রাত ২টার দিকে সেখানে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। বাড়ির তত্ত্বাবধানে থাকা আকবর আলী (৪৫) বলেন, ‘রাতে ওই বাড়িতে আমার স্ত্রী, সন্তান রেখে শহরের জেলা পরিষদ মার্কেটে নৈশপ্রহরীর দায়িত্ব পালন করতে যাই। রাত ২টার দিকে লোকমুখে আগুন লাগার কথা শুনি। আমার স্ত্রীকে ফোন করে অগ্নিকাণ্ডের বিষয়ে নিশ্চিত হয়ে বাড়িতে আসি। দেখতে পাই, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নেভাচ্ছেন।’

আকবর আলীর স্ত্রী আয়শা বেগম বলেন, ‘রাত ১টার দিকে আমার স্বামী বাড়ি থেকে শহরের দিকে যায়। রাত ২টার দিকে ঝুট কাপড়ের গুদামের চারিদিক থেকে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে দেখি। আমি চিৎকার করতে থাকলে এলাকার লোকজন এসে আমাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়।’ ওই গুদামে বৈদ্যুতিক তারের সংযোগ নেই বলে তিনি জানান। দেওয়ান সাগর আহমেদ জানান, উত্তরা ইপিজেড থেকে এক সপ্তাহ আগে সাড়ে চার লাখ টাকা মূল্যের ১৩ ট্রাক ঝুট কাপড়সহ কাগজ ও চামড়ার ঝুট কিনে এনে ওই গুদামে রাখেন তিনি। এর আনুমানিক ওজন ১৩০ টন। সেগুলো বাছাইয়ের প্রক্রিয়া চলছিল। তিনি বলেন, ‘ওই গুদামের সঙ্গে বিদ্যুতের সংযোগ নেই। সেখানে আগুন লাগার কারণ খুঁজে পাচ্ছি না। আমার ক্ষতি করার জন্য কেউ আগুন লাগিয়ে দিয়েছে।’

নীলফামারী ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা এনামুল হক প্রামাণিক বলেন, ‘আগুন নিভিয়ে সকাল ১১টার (সোমবার) দিকে আমরা ঘটনাস্থল থেকে চলে আসি। অগ্নিকাণ্ডের কারণ অনুসন্ধানে তদন্ত চলছে।’ নীলফামারী সদর থানার ওসি বাবুল আকতার বলেন, ‘অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’



মন্তব্য