kalerkantho


প্রিয়াংকার খুনিদের শাস্তি দাবি

রূপগঞ্জে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৯ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে হাজী আয়েত আলী ভূঁইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের জেএসসি পরীক্ষার্থী প্রিয়াংকার হত্যাকারীদের শাস্তির দাবিতে সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করা হয়েছে। প্রিয়াংকার স্বজনসহ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী গতকাল শনিবার দুপুরে তারাবো পৌরসভার কার্যালয়ের সামনে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে। একপর্যায়ে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করে তারা।

অবরোধের কারণে মহাসড়কের ১০ কিলোমিটার এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে দুর্ভোগের শিকার হয় যাত্রীরা।

খবর পেয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। এ সময় তাঁরা হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করার আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়।  

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন হাজী আয়েত আলী ভূঁইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হোসনে আরা পারভীন, সহকারী শিক্ষক কৃষ্ণপদ সাহা, ক্রীড়া শিক্ষক লুত্ফর রহমান, টিপু মোল্লা, আবু হানিফ, তাইজুদ্দিন, শহিদুল ইসলাম, আকতারুজ্জামান, স্কুল কমিটির সদস্য কবির মোল্লা, রিয়াজুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর, খোকা প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, প্রিয়াংকা ভালো ছাত্রী ছিল। লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলাতেও ব্যস্ত সময় পার করত। এ সময় হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তিসহ অবিলম্বে প্রিয়াংকাদের বাড়ির মালিক ফারজানা বেগমকে গ্রেপ্তারের দাবি জানান তাঁরা।

প্রসঙ্গত, প্রিয়াংকা বরাব এলাকার ওষুধ ব্যবসায়ী মহিউদ্দিনের মেয়ে। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ফারজানার বাড়িতে থাকত সে। প্রাইভেট পড়ে বাড়িতে ফেরার পথে প্রিয়াংকাকে অপহরণ করে ধর্ষণের পর গলা কেটে হত্যা করা হয়। ঘটনাটি ভিন্ন খাতে নিতে বরাব কবরস্থান এলাকায় দুই বাড়ির সীমানাপ্রাচীরের মাঝে ড্রেনে লাশ ফেলে রাখা হয়। লোকমুখে খবর পেয়ে পুলিশ গত ৫ নভেম্বর সকালে লাশটি উদ্ধার করে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় প্রিয়াংকার বাবা মহিউদ্দিন হত্যা মামলা করেন। পুলিশ বরাবর শহিদুল্লাহ ডাকাত ও হাসান এবং খাদুন এলাকার উদরুতউল্লাহকে গ্রেপ্তার করে।

 


মন্তব্য