kalerkantho


মণিরামপুরে দিনমজুর সরাইলে ব্যবসায়ী খুন

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

১৯ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



মণিরামপুরে দিনমজুর সরাইলে ব্যবসায়ী খুন

যশোরের মণিরামপুর উপজেলার হেলাঞ্চী কৃষ্ণবাটি গ্রামে নিজ ঘরে খুন হওয়া আকবর আলীর স্বজনদের আহাজারি। ছবি : কালের কণ্ঠ

যশোরের মণিরামপুরে নিজ ঘরে খুন হয়েছেন দিনমজুর। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাঁর স্ত্রী ও ছেলে-মেয়েকে থানায় নিয়েছে পুলিশ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে মাছ ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।   বিস্তারিত প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে :  

মণিরামপুর (যশোর) : নিজ ঘরে দিনমজুর আকবর আলীকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার রাতে মণিরামপুর উপজেলার হেলাঞ্চী কৃষ্ণবাটি গ্রামে। খবর পেয়ে পুলিশ গতকাল শনিবার সকালে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। অন্যদিকে হত্যাকাণ্ড নিয়ে একেক সময় একেক বক্তব্য দিচ্ছেন স্ত্রী হালিমা খাতুন। এতে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনিসহ ছেলে মিন্টু হোসেন ও মেয়ে সোনিয়াকে থানায় নিয়েছে পুলিশ। প্রতিবেশীদের বক্তব্য, আকবর পরিশ্রমী ও সৎ ছিলেন। শুক্রবার রাত ১টার দিকে তাঁর স্ত্রী একবার চিৎকার দিয়ে থেমে যান।

বেশ কিছুক্ষণ পর আবার চিৎকার শুনে তাঁরা গিয়ে দেখেন আকবরের লাশ বারান্দায় পড়ে আছে। প্রতিবেশীদের ধারণা, রাতে হালিমার ঘরে কেউ ঢুকেছিল। আর আকবর তা টের পেয়ে যান। তিনি সব বলে দেবেন—এ ভয়ে তাঁকে খুন করা হয়েছে। তবে হালিমা বলেন, “রাতে স্বামীর সঙ্গে আমি ঘুমিয়ে ছিলাম। তখন কয়েকজন দুর্বৃত্ত ঘরে ঢুকে আমার ও স্বামীর মুখ বেঁধে আমাকে হত্যার চেষ্টা করে। তখন আমার স্বামী বলে, ‘তোরা ওকে (হালিমা) না মেরে আমাকে মার। ’ এ কথা শুনে ওরা আমার স্বামীকে হত্যা করে। ” হালিমার দাবি, পূর্বশত্রুতার জেরে তাঁর স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। তবে খেদাপাড়া পুলিশ তদন্তকন্দ্রের ইনচার্জ এসআই আইনুদ্দীনকে হালিমা জানিয়েছেন, শুক্রবার রাত ৯টার দিকে তিনি পাশের বাড়িতে টেলিভিশন দেখছিলেন। তখন আকবর তাঁকে সেই বাড়ি থেকে ডেকে আনেন। পরে তাঁরা ঘুমিয়ে পড়েন। রাত ১টার দিকে ঘুম ভাঙলে দেখেন তাঁর স্বামীর মুখ বাঁধা। পরে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে (দুর্বৃত্তদের সঙ্গে) তাঁর স্বামী খুন হন। মণিরামপুর থানার ওসি মোকাররম হোসেন বলেন, হত্যার মোটিভ জানার চেষ্টা চলছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আকবরের স্ত্রীসহ ছেলে-মেয়েকে থানায় আনা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : পিকআপ ভ্যানের আরোহী মাছ ব্যবসায়ী মো. রফিকুল ইসলামকে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার রাতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সরাইল উপজেলার বেড়তলা এলাকায়। রফিকুল রাজশাহীর বাগমারার শাহপুর গ্রামের মো. ছদর মোল্লার ছেলে। একই ঘটনায় আহত হয়েছেন ভ্যানটির চালক নাটোরের মুর্তুজ আলীর ছেলে মো. আশরাফুল ও হেলপার বাগমারার বীরপরা গ্রামের সোলায়মান মণ্ডলের ছেলে মো. সালাম। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আশরাফুলকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। সালামকে সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে গতকাল শনিবার বিকেল পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। একাধিক সূত্র জানায়, পিকআপ ভ্যানে মাছবোঝাই করে সিলেটে যাচ্ছিলেন রফিকুল। পথে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সরাইলের বেড়তলায় ভ্যানটিকে লক্ষ্য করে ঢিল ছোড়া হয়। কোনো সমস্যা হয়েছে মনে করে চালক আশরাফুল ভ্যানটি থামিয়ে ফেলেন। এ সময় দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত কয়েকজন দুর্বৃত্ত তাঁকে জিম্মি করে। একপর্যায়ে ব্যবসায়ী রফিকুলকে ছুরিকাঘাত করে তারা। পরে রফিকুল, আশরাফুল ও হেলপার সালামকে ফেলে ভ্যানটি নিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে সরাইল-থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। পরে শায়েস্তাগঞ্জ এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয় ভ্যানটি। সরাইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামরুজ্জামান জানান, ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত তা জানার চেষ্টা চলছে।


মন্তব্য