kalerkantho


বিএনপি নেতাসহ গ্রেপ্তার ২১

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

১৯ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০



পাঁচ জেলায় বিভিন্ন অভিযোগে বিএনপি নেতাসহ ২১ জনকে গত মঙ্গলবার রাতে ও গতকাল বুধবার গ্রেপ্তার করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

নোয়াখালী : সেনবাগ উপজেলায় থানা পুলিশ বিশেষ অভিযানে নাশকতার মামলায় বিএনপি নেতাসহ তিনজনকে বুধবার তাঁদের বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে।

তাঁরা হলেন সেনবাগ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির ১ নম্বর যুগ্ম সম্পাদক মোক্তার হোসেন পাটোয়ারী, যুববিষয়ক সম্পাদক আমিরুল ইসলাম টিপু ও ছাত্রশিবির নেতা সাদ্দাম হোসেন। দুপুরে তাঁদের জেলা আদালতে পাঠানো হলে আদালত জামিন নাকচ করে জেলহাজতে পাঠান। সেনবাগ থানার ওসি হারুন অর রশিদ চৌধুরী জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে নাশকতা ছাড়াও পুলিশের কাজে বাধা দেওয়া এবং সড়ক অবোরোধ করে জনদুর্ভোগ সৃষ্টির অভিযোগে থানায় মামলা রয়েছে।

গোপালগঞ্জ : সদর উপজেলার বেদভীটা থেকে ১০ লিটার চোলাই মদসহ সাত মাদকসেবীকে আটকের দাবি করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে আটকরা হলেন সদর উপজেলার বাড়ইকান্দি গ্রামের কৌশিক হীরা, সাতপাড় গ্রামের সাধু অধিকারী, মাদারীপুরের রাজৈরের ইকরাবাড়ী গ্রামের সুকণ্ঠ গাইন, নীহার গাইন, দীঘিরপাড় গ্রামের পাচু সরকার, স্বপন রায় ও কৃষ্ণ সরকার। বৌলতলী তদন্তকেন্দ্রের পুলিশ পরিদর্শক সাজেদুর রহমান জানান, আটকদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

হবিগঞ্জ : চুনারুঘাট ও শায়েস্তাগঞ্জে বুধবার অভিযানে হবিগঞ্জে এক হাজার ৭১৪টি ইয়াবাসহ দুই মাদক বিক্রেতাকে আটকের দাবি করেছে র‌্যাব। তাঁরা হলেন বানিয়াচং উপজেলার সজল দাশ ও চুনারুঘাটের উবাহাটা গ্রামের ফরিদ মিয়া। র‌্যাব-৯ শ্রীমঙ্গল ক্যাম্পের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কম্পানি কমান্ডার বিমান চন্দ্র কর্মকার জানান, এ ব্যাপারে আটক দুজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

শেরপুর : নকলা উপজেলার গৌরদ্বার এলাকায় ইজিবাইক ‘চুরি করে পালানোর সময়’ মঙ্গলবার বিকেলে একজনকে আটক করেছে স্থানীয় জনতা। আটক মো. শাহ আলমের (২২) বাড়ি নকলার ধামনা গ্রামে। পরে উদ্ধার করা ইজি বাইকটিসহ শাহ আলমকে নকলা থানায় হস্তান্তর করা হয়। এ ঘটনায় বুধবার নকলা থানায় মামলা হয়েছে বলে জানান শেরপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আমিনুল ইসলাম।

রাজবাড়ী : সদর উপজেলায় মঙ্গলবার রাতে অভিযানে পুলিশ আট পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করে। তাঁরা হলেন মমিন সেখ, সালমা আক্তার, বাবু মোল্লা রকি, উজ্জল মাহমুদ, হযরত ফকির, আলম খাঁ, রব সেখ ও তোরাই সরদার।

 


মন্তব্য