kalerkantho


চাঁদপুরে বাল্যবিয়ে ঠেকিয়ে বর-কনের বাবাকে দণ্ড

চাঁদপুর প্রতিনিধি   

১০ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০



বিয়ের আয়োজন প্রায় শেষ। তবে কনের বয়সটা কম।

তাই রাতেই বিয়ের কাজটা সাড়তে চেয়েছিলেন গুনধর ইউপি সদস্য বজলুল গণি ঝিলন। কিন্তু তাতে বেঁকে বসেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রশাসন। অবশেষে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল দশম শ্রেণির ওই ছাত্রী। গত রবিবার রাতে চাঁদপুর সদরের মৈশাদী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

সদর উপজেলার মৈশাদী ইউনিয়ন পরিষদের সচিব আবু বক্কর মানিক জানান, বিদেশফেরত ছেলে অনেক টাকার মালিক—এমন প্রলোভনে ফেলে কনের বাবার কাছ থেকে বকশিশ নিয়ে বিয়ের আয়োজন করেন ইউপি সদস্য বজলুল গণি ঝিলন। খবর পেয়ে চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মানিক ঘটনাটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানান। সেখানে রাতেই হাজির হন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা। তিনি তাত্ক্ষণিক ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বিয়ের আয়োজক ইউপি সদস্য বজলুল গণি ঝিলনকে এক হাজার টাকা জরিমানা এবং তাঁকে ভর্ত্সনা করেন। বিয়েতে রাজি হওয়ায় বর ও কনের বাবাকে এক সপ্তাহের কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কানিজ ফাতেমা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিয়ের আয়োজনে উপস্থিত কাজি আল মামুন সুফিয়ান প্রশাসনের লোকজন আসার খবর পেয়ে পালিয়ে যান।


মন্তব্য