kalerkantho


পুলিশের চাকরি না ছাড়ায় নারী কনস্টেবলকে হত্যা

শ্বশুর-দেবররা রিমান্ডে অধরা স্বামী রুবেল

নিজস্ব প্রতিবেদক, নরসিংদী   

১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



নরসিংদীর মনোহরদীতে নারী পুলিশ কনস্টেবল আয়েশা আক্তার নীলা হত্যাকাণ্ডের তিন দিন অতিবাহিত হলেও প্রধান আসামি স্বামী রুবেলকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

এদিকে আসামি শ্বশুর জালাল উদ্দিন, দেবর সোহাগ, হিমেল ও কবিরের পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে জ্যেষ্ঠ বিচার বিভাগীয় হাকিম আদালতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মনোহরদী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আসামিদের সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। হাকিম রেজমিন সুলতানা আসামিদের পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

অন্যদিকে নীলা হত্যার বিচারের দাবিতে হাফিজপুর উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করেছেন। পরে নীলার বাড়িতে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নেয়। ওই সময় মনোহরদী থানার ওসি সাইফুল ইসলাম আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হবে বলে শিক্ষার্থীদের আশ্বাস দিয়েছেন।

নীলার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, শোকের ছায়া নেমে এসেছে তাঁর পরিবারে। তাঁর বাবা মফিজ উদ্দিন বলেন, পুলিশের চাকরি ছেড়ে দিতে রুবেল ও তাঁর পরিবারের লোকজন চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। কিন্তু নীলা চাকরি ছাড়তে রাজি না হওয়ায় তাঁকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়। তিনি আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেন।

মনোহরদী থানার ওসি সাইফুল ইসলাম বলেন, রুবেল যাতে বিদেশে পালিয়ে যেতে না পারে সে জন্য ইমিগ্রেশনে চিঠি দেওয়া হয়েছে। তাঁকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

প্রসঙ্গত, গত রবিবার সন্ধ্যায় মনোহরদী উপজেলার লেবুতলা ইউনিয়নের তারাকান্দী গ্রামের স্বামীর বাড়ি থেকে নারী পুলিশ কনস্টেবল আয়েশা আক্তার নীলার (২২) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।


মন্তব্য