kalerkantho


ভাষার জন্য ভালোবাসা

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ভাষার জন্য ভালোবাসা

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে গতকাল বগুড়া জেলা পরিষদ ভবন প্রাঙ্গণে (ওপরে) এবং মাগুরা শিশু একাডেমি শহরের আতর আলী পাঠাগার চত্বরে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। ছবি : কালের কণ্ঠ

ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে গতকাল মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। বিস্তারিত আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে : 

ময়মনসিংহ : ‘এপেক্স ক্লাব অব ব্রহ্মপুত্র’র উদ্যোগে শহরের পথশিশুরা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়।

পরে সংগঠনটির পক্ষ থেকে শিশুদের নতুন কাপড় দেওয়ার পাশাপাশি আপ্যায়ন করা হয়। এর আগে প্রথম প্রহরে বিভাগীয় কমিশনার জি এম সালেহ উদ্দিন, ডিআইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন প্রমুখ শ্রদ্ধা জানান।

শেরপুর : জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে ভাষাসৈনিকদের সংবর্ধনা দেয় জেলা প্রশাসন। এ ছাড়া বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও শিশু সংগঠনের উদ্যোগে আবৃত্তি, রচনা, সংগীত, সুন্দর হাতের লেখা প্রতিযোগিতা হয়েছে।

গাজীপুর : প্রথম প্রহরে ভাওয়াল রাজবাড়ি মাঠের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন জেলা প্রশাসক এস এম আলম ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সোলায়মান। দুপুরে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভাষাশহীদ বরকতের মায়ের কবর জিয়ারত করা হয়। টঙ্গীতে স্টেশন রোড এলাকার শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানান স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল। দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট, ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট, ডুয়েট, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন সংগঠন আলাদাভাবে নানা কর্মসূচি পালন করেছে।

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) : কালিয়াকৈর উপজেলা প্রশাসন, মধ্যপাড়া ইউনিয়ন শ্রমিক লীগ, কালিয়াকৈর থানা নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়ন, আন্দার মানিক আব্দুল্লাহ মডেল পাবলিক স্কুল, সফিপুর আইডিয়াল পাবলিক স্কুলসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আলাদাভাবে নানা কর্মসূচির আয়োজন করে।

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) : কেরানীগঞ্জ গ্র্যাজুয়েট সোসাইটির আহ্বায়ক ম ই মামুনের উদ্যোগে গতকাল সকালে চুনকুটয়াি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় মাঠে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুপুরে সেখানে যান স্থানীয় সংসদ সদস্য এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। পরে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এর আগে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ শহীদ মিনারে ফুলেল শ্রদ্ধা জানায়।

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) : শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক দেন স্থানীয় সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম মান্নান, সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ আল কায়সার, উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা শামসুল ইসলাম ভূঁইয়া ও মাহফুজুর রহমান কালাম, জেলা ছাত্রদল নেতা খায়রুল ইসলাম সজীব প্রমুখ।

মুন্সীগঞ্জ : দিনব্যাপী নানা আয়োজনের মধ্যে ছিল বইমেলা, চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভা। এর আগে প্রথম প্রহরে জেলা শিল্পকলা চত্বরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানান জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা ও পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম। পরে জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আনিস-উজ-জামান, পৌর মেয়র মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লবসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ শ্রদ্ধা জানায়।

মানিকগঞ্জ : শহরের বিজয় মেলা মাঠে ভাষাশহীদ রফিকউদ্দিন আহমেদের পরিবারের সদস্যদের সম্মাননা জানায় জেলা প্রশাসন। একই অনুষ্ঠানে জেলার ভাষাসৈনিকদের সম্মাননা জানানো হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক। পরে সেখানে আয়োজিত তিন দিনের বইমেলার উদ্বোধন করেন প্রতিমন্ত্রী।

রাজবাড়ী : কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য দেন সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য কামরুন নাহার চৌধুরী, জেলা প্রশাসক জিনাত আরা, পুলিশ সুপার সালমা বেগম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল জব্বার প্রমুখ।

নেত্রকোনা : শহরের ছোট বাজারে অবস্থিত শহীদ মিনারে প্রথমে শ্রদ্ধা জানান পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম খান। পরে জেলা ও পুলিশ প্রশাসন, জেলা পরিষদ, জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা বিএনপি, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম, বঙ্গবন্ধু পরিষদসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংস্থা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শ্রদ্ধা জানায়।

গাইবান্ধা : জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে বিকেলে আলোচনা, পুরস্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি। বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার মো. আশরাফুল ইসলাম, পৌর মেয়র শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির মিলন প্রমুখ।

মৌলভীবাজার : একে একে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য সৈয়দা সায়রা মহসিন, জেলা পরিষদের প্রশাসক আজিজুর রহমান, জেলা প্রশাসক মো. তোফয়েল ইসলাম, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহজালাল, পৌর মেয়র মো. ফজলুর রহমান, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান মিজান, মৌলভীবাজার প্রেস ক্লাবের সভাপতি এম এ সালাম, সাধারণ সম্পাদক এস এম উমেদ আলী প্রমুখ।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় : ঈশা খাঁ হল সংলগ্ন প্রথম শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক দেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সংগঠন। পরে বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব থেকে সব শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অংশগ্রহণে প্রভাতফেরি বের হয়। দিনব্যাপী আরো আয়োজনের মধ্যে ছিল আলোচনা সভা, শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় মোনাজাত, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতা।

ফরিদপুর : একুশের প্রথম প্রহরে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনের পক্ষে জেলা প্রশাসক বেগম উম্মে সালমা তানজিয়া শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য দেন। পরে জেলা ও পুলিশ প্রশাসন, সরকারি দপ্তর, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল দেওয়া হয়।

যশোর : জেলা প্রশাসন ও বিভিন্ন সংগঠনের আয়োজনে জেলার বিভিন্ন স্থানে আলোচনা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সুন্দর হাতের লেখা প্রতিযোগিতা, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও কবিতা আবৃত্তির প্রতিযোগিতা হয়েছে।

খাগড়াছড়ি : প্রভাতফেরিতে সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেয়। শহীদ মিনারে ফুল দেন স্থানীয় সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, কংজরী চৌধুরী, মুহাম্মদ ওয়াদুিজ্জামান, মো. মজিদ আলী। বিকেলে টাউন হল মাঠে বইমেলার উদ্বোধন করা হয়।

গোপালগঞ্জ : জেলার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়েছে। ভাষাশহীদদের আত্মার শান্তি কামনায় মসজিদ, মন্দির ও গির্জায় ভাষা প্রার্থনার আয়োজন করা হয়।

কুষ্টিয়া : ডিসি কোর্ট চত্বরের শহীদ মিনারে জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান ও পুলিশ সুপার প্রলয় চিসিম পুষ্পস্তবক দেন। পরে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সংগঠন ও সাধারণ মানুষ শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়।

মাগুরা : সরকারি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের শহীদ মিনারে জেলা প্রশাসক মুহ. মাহবুবর রহমান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পঙ্কজ কুণ্ডু, পুলিশ সুপার মুনিবুর রহমানসহ সর্বস্তরের মানুষ ফুলেল শ্রদ্ধা জানায়।

চুয়াডাঙ্গা : দর্শনা পৌর মাঠে গতকাল সকালে অনির্বাণ একুশে নাট্যমেলার আয়োজন করা হয়। মেলায় বাংলা বর্ণলিখন, বাক্যলিখন ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় তিন শতাধিক শিশু অংশ নেয়। পরে বিজয়ীদের পুরস্কার দেওয়া হয়।

নীলফামারী : শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য দেন জেলা প্রশাসক জাকীর হোসেন, পুলিশ সুপার জাকির হোসেন খান, সিভিল সার্জন আব্দুর রশিদ প্রমুখ। শেষে তাঁরা এক মিনিট নীরবতা পালন করেন। পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় : প্রথম প্রহরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবুল হোসেন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আবুল খায়ের, অনুষদ ডিন, রেজিস্ট্রার, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ছাত্রনেতারা। একে একে বিশ্ববিদ্যালয় মহিলা ক্লাব, শিক্ষক সমিতি, অফিসার সমিতি, ছাত্র সংগঠন, কর্মচারী সমিতি, কর্মচারী ইউনিয়ন, জাবি শাখা ছাত্রলীগ, ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, জাবি প্রেস ক্লাব, জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট, হল প্রভোস্ট, বিভিন্ন বিভাগ ও সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এর আগে ভোরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-অফিসার ক্লাব থেকে শহীদ মিনার অভিমুখে প্রভাতফেরি বের করা হয়। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল ও কলেজের ছাত্র-শিক্ষকরা এতে অংশ নেয়। সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন কলা ভবনে চারুকলা বিভাগের উদ্যোগে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন উপাচার্য ফারজানা।

ফেনী : ফেনীর দাগনভূঞার সালামনগরে মানুষের ঢল নেমেছিল। মঙ্গলবার ভোরে প্রথমে ভাষাশহীদ আব্দুস সালামের ছোট ভাই মো. আব্দুল করিমের নেতৃত্বে সালামনগর স্কুল প্রাঙ্গণে নির্মিত শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় সালাম পরিবারের সদস্যরা। এরপর একে একে ইকবাল মেমোরিয়াল কলেজ, আতাতুর্ক উচ্চ বিদ্যালয়, উত্তর আলীপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও ওমরপুর সুলতানা মোমোরিয়াল গার্লস স্কুলসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি দেয়।

এদিকে ফেনীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয় মহান ভাষা দিবস। রাত ১২টা ১ মিনিটে ট্রাংক রোডের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দেন ফেনী-১ আসনের এমপি শিরীন আখতার, ফেনী-২ আসনের এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী, সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি জাহান আরা বেগম সুরমাসহ প্রশাসনের কর্মকর্তা ও বিভিন্ন সংগঠন। ভোরে প্রভাতফেরি করে ফুল দেয় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।


মন্তব্য