kalerkantho


চুয়াডাঙ্গায় পুলিশকে জানাল স্ত্রী

স্বামী আত্মহত্যা করেনি খুন করা হয়েছে

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



চুয়াডাঙ্গা শহরের সাদেক আলী মল্লিকপাড়ার পরিবহন শ্রমিক রাজা হোসেন (৪০) আত্মহত্যা করেননি। তাঁকে হত্যা করা হয়েছে বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে তাঁর স্ত্রী।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ওসি তোজাম্মেল হক জানান, রাজা ১২ বছর আগে বিয়ে করেন। এর পর থেকে নিজ বাড়িতে স্ত্রীসহ বাস করতেন। তাঁদের সংসারে ১১ বছর বয়সী একটি ছেলে ও ছয় বছর বয়সী একটি মেয়ে রয়েছে। শনিবার রাত ৮টার দিকে তাঁর স্ত্রী চিত্কার করে এলাকাবাসীকে জানায়, স্বামী ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। রাজা চুয়াডাঙ্গা-খুলনা রুটে একটি বাসে চালকের সহকারী হিসেবে কাজ করতেন।

রবিবার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে লাশের ময়নাতদন্ত হয়। ওই দিন সন্ধ্যায় লাশ স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়। এ মৃত্যু নিয়ে সন্দেহ হওয়ায় রবিবার দুপুরে পুলিশ রাজার স্ত্রী (৩৫), শ্যালিকা ও শাশুড়িকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে।

বাড়ি থেকে বালিশসহ আরো কিছু আলামত নিয়ে আসে। রবিবার সন্ধ্যায় পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রী স্বীকার করে, তার বড় বোনের দেবর মোহাম্মদ বাবুর সঙ্গে তার ছিল প্রেমের সম্পর্ক। বাবু ঢাকার জুরাইনে থাকে। মোবাইল ফোনে সে হত্যা করার পরিকল্পনা জানায়। গত শনিবার বাবু তার এক বন্ধুকে নিয়ে ওই বাড়িতে আসে। রাজাকে বালিশচাপা দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে। রবিবার সন্ধ্যায় পুলিশের কাছে হত্যা করার কথা স্বীকার করার পর রাতে নিহতের ভাই রাশেদুল ইসলাম বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা করেন।


মন্তব্য