kalerkantho


সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজে চলছে ধর্মঘট

'হাতুড়ে ডাক্তার হতে চাই না'

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি   

৩ নভেম্বর, ২০১৫ ০০:০০



সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজের ২৫০ শয্যা হাসপাতাল চালুর দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন করেছেন শিক্ষার্থীরা। গতকাল সোমবার সকালে এ কর্মসূচি পালন করেন তাঁরা।

এ সময় শ্রেণিকক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। দাবি আদায়ে ডাকা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের তৃতীয় দিনেও শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ ছিল। এর আগে পরিস্থিতি বিবেচনায় গত রবিবার একাডেমিক কাউন্সিলের সভা কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয়।

সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন শেষে আন্দোলনকারীরা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেন। তাতে উল্লেখ করা হয়, সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ২৫০ শয্যা চালু করতে হবে। নইলে তাঁদের অন্য কোনো পূর্ণাঙ্গ মেডিক্যাল কলেজে স্থানান্তর করতে হবে। এ দাবি মানা না হলে ক্লাসের পাশাপাশি হাসপাতালে সব ধরনের কার্যক্রম বর্জনের ঘোষণা দেন তাঁরা।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, '২০১১ সালে সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ চালু হলেও আজ পর্যন্ত তা পূর্ণাঙ্গ রূপ লাভ করেনি। শুধু ৩০ শয্যা মেডিসিন ওয়ার্ডটি নামমাত্র লোকবল নিয়ে চলছে, যা আমাদের ক্লিনিক্যাল ক্লাসের জন্য যথেষ্ট নয়।

চূড়ান্ত পেশাগত অভিজ্ঞতার জন্য ২৫০ শয্যা হাসপাতাল চালু হওয়া প্রয়োজন। ক্লিনিক্যাল কার্যক্রমে এক্সপার্ট না হলে রোগীকে সেবা দেওয়া সম্ভব নয়। কলেজ প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের বহুবার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হলেও তা বাস্তবায়ন হচ্ছে না। '

শিক্ষার্থীদের পক্ষে দাবি আদায়ের অন্যতম সংগঠক পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থী আলমগীর হোসেন ও ইমরান হোসেন বলেন, 'একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় শিক্ষকরা আমাদের আন্দোলন প্রত্যাহার করতে বলেন। কিন্তু আমরা তাঁদের আশ্বাসে আশ্বস্ত হতে পারছি না। '

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, 'আন্দোলনের জন্য আমরা এখানে আসিনি। আমরা পরিবারের স্বপ্ন নিয়ে ভালো ডাক্তার হতে এসেছি। কিন্তু আমরা সে সুযোগ পাচ্ছি না। রাষ্ট্র আমাদের ভালো শিক্ষার সুযোগ দিচ্ছে না। আমরা হাতুড়ে ডাক্তার হতে চাই না। '

সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. কাজী হাবিবুর রহমান জানান, কলেজের সার্বিক পরিস্থিতি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তবে উচ্চ মহল থেকে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের অক্টোবরে শহরতলির কাটিয়া এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে যাত্রা শুরু করে সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ। গত ৪ এপ্রিল স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এ মেডিক্যাল কলেজে ২৫০ শয্যা হাসপাতাল উদ্বোধন করেন।

প্রায় ছয় মাস পেরিয়ে গেলেও পূর্ণাঙ্গ হাসপাতালের কার্যক্রম চালু হয়নি। বর্তমানে মেডিক্যাল কলেজটিতে ২০৮ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন।

 


মন্তব্য