kalerkantho


আঙুল ছুঁলেই বুঝে যাবেন হার্টের রোগে আক্রান্ত কি না!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ মার্চ, ২০১৭ ২১:০৩



আঙুল ছুঁলেই বুঝে যাবেন হার্টের রোগে আক্রান্ত কি না!

আপনার হার্ট ঠিক মতো কাজ করছে কিনা জানতে একটা সহজ পদ্ধতি আছে। কী সেই পদ্ধতি জানেন? একবার চেষ্টা করে দেখুন তো আপনার হাতের আঙুল পায়ের পাতা পর্যন্ত পৌঁছাচ্ছে কি না? এমনটা করার মাধ্যমেই কিন্তু আপনি বুঝে যেতে পারবেন আপনার হার্ট অসুস্থ কি না। মানে! কীভাবে এমনটা সম্ভব?

একাধিক গবেষণাতেও একথা প্রমাণিত হয়েছে যে পায়ের আঙুল ছোঁয়ার মাধ্যমে হার্টের অবস্থা সম্পর্কে ধারণা করা সম্ভব। তাই এই নিয়ে কোনও বিতর্কের কোনও অবকাশ নেই যে এই পদ্ধতি বাস্তবিকই কার্যকরী। আসলে এই সব স্টাডিতে দেখা গেছে শরীরের সঙ্গে আর্টারির ইলাস্ট্রিসিটির একটা যোগ রয়েছে। তাই তো যারা পায়ের পাতা বা আঙুল ছুঁতে পারেন না, তাদের ব্লাড ভেসেল খুব স্টিফ হয়। ফলে এমন মানুষদের হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভবনা অন্যদের থেকে বেশি থাকে। কিছু ক্ষেত্রে তো এমন মানুষদের হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কাও থাকে। তাই যদি দেখেন আপনি পায়ের আঙুল ছুঁতে পারছেন না, তাহলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের পরমার্শ নেবেন। অপরদিকে যারা সোজা দাঁড়িয়ে হাত দুটি উপরে থেকে একেবারে নিচে এনে পায়ের আঙুল ছুঁতে পারেন তাদের হার্টের স্বাস্থ্য যে বেজায় ভাল সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই।


ধাপ ১ : মাটিতে বসে নিয়ে পা দুটি সামনের দিকে সোজা করে রাখুন।

যেমনটা উপরের ছবিতে দেখানো হয়েছে।  

ধাপ ২ : খেয়াল করবেন পায়ের আঙুলগুলি যেন ভাঁজ হয়ে না থাকে।  

ধাপ ৩ : এবার চেষ্টা করুন পায়ের আঙুলগুলি ছোঁয়ার। ঠিক যেভাবে নিচের ছবিতে দেখান হয়েছে সেভাবে। পারলেন ছুঁতে? 


ধাপ ৪ : যদি আঙুল ছুঁতে পারেন তাহলে বুঝবেন আপনার হার্ট একেবারে চাঙ্গা আছে।  

ধাপ ৫ : আর যদি না পারেন। তাহলে বুঝবেন আপনার ব্লাড ভেসেলগুলি ফ্লেক্সিবেল বা নমনীয় নয়। যে কারণে আপনি পায়ের আঙুল ছুতে পারছেন না। এমনটা হলে যত শীঘ্র সম্ভব চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন।

ধাপ ৬ : ব্লাড ভেসেল যদি নমনীয় না হয় তাহলে হার্টের অসুখে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বহুগুণে বৃদ্ধি পায়।  

ধাপ ৭ : তবে অনয়নীয় ব্লাড ভেসেল মানেই আপনার হার্টের রোগ আছে, এমনও নয় কিন্তু! আপনার বয়স কত, কোনও ধরনের নন কমিউনিকেবল ডিজিজ, যেমন-উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, কোলেস্টরল প্রভৃতি রোগে আপনি আক্রান্ত কিনা, ওজন স্বাভাবিক আছে কিনা, জীবনযাত্রা কেমন এই সব নানা ফ্যাক্টর এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।  

ধাপ ৮ : এক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরমর্শ নেওয়াই সব থেকে নিরাপদ। কারণ তিনি প্রয়োজনীয় কিছু পরীক্ষা করে আপনাকে বলে দিতে পারেন বাস্তবিকই আপনার হার্টে কোনও সমস্যা আছে কিনা।

- ওয়েবসাইট


মন্তব্য