kalerkantho


রান্নাঘরেই প্রকৃতির 'পেইনকিলার'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ মার্চ, ২০১৭ ১৯:০৯



রান্নাঘরেই প্রকৃতির 'পেইনকিলার'

ব্যথানাশক ওষুধ যে দারুণ ক্ষতিকর তা সবাই জানেন। কিন্তু শারীরিক ব্যথায় হরহামেশাই ওষুধের শরণাপন্ন হই আমরা। কারণ ওষুধ ছাড়া যেন ব্যথা উপশমের কোনো উপায় নেই। আসলে ব্যথা ভোগের চেয়ে দ্রুত ওষুধ খেয়ে মুক্তি পেতে চায় সবাই। কিন্তু এর জন্য ওষুধের প্রয়োজন নেই। রান্নাঘরেই রয়েছে বেদনানাশক খাবার। এগুলো প্রকৃতির ব্যথানাশক উপাদান বলে বিবেচিত হয় বিশেষজ্ঞদের কাছে। চিনে নিন এমনই কিছু খাবার।

১. টার্ট চেরি
অনেকেই জানেন না যে টার্ট চেরি বেদনানাশক ওষুধের মতো কাজ করে। টার্ট চেরি মূলত বেকারি খাবার অর্থাৎ কেক বা বিস্কিটের ব্যবহৃত হয়। এতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যার নাম অ্যান্থোসায়ানিন।

প্রদাহ ও ব্যথা উপশনে কাজ করে এই উপাদান।

২. হলুদ
রান্নাঘরের অতি সাধারণ এক মসলা। এর কারকিউমিন উপাদানটি হলুদ রং প্রদান করে খাবারে। এই উপাদানের প্রদাহবিনাশী গুণ রয়েছে। অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ তৈরিতে এর ব্যবহার ঘটে। পেশি ও দেহের বেদনাকে বিদায় জানাতে বেশ কাজের কারকিউমিন। এক গ্লাস দুধ বা চায়ের সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে খেলেই উপকার মিলবে।

৩. আদা
এই গুণী খাবারের কিন্তু ব্যথা উপশমের গুণও রয়েছে। এর অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদান আরথ্রাইটিস, পেটব্যথা, বুকের ব্যথা, পিরিয়ড সংক্রান্ত ব্যথা এমনকি পেশির ব্যথা থেকে মুক্তি দিতে পারে। আদা বাঁটা ব্যথাপূর্ণ স্থানগুলোতে দিলেই উপকার মিলবে।

৪. লাল আঙ্গুর
এই ফল ব্যথানাশে রীতিমতো বিখ্যাত এক খাবার। রেসভেরাট্রল নামের এক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে এতে। স্বরযন্ত্র এবং শ্বাসনালীর এক বিশেষ টিস্যুর দেখভাল করে এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। সংযোগস্থলের এবং পিঠের ব্যথাও উপশম করে লাল আঙ্গুর।

৫. পুদিনা পাতা
বিভিন্ন থেরাপির কাজে নামডাক রয়েছে পুদিনা পাতার। এই পাতা পেশির ব্যথা, দাঁতে ব্যথা, মাথাব্যথা এবং স্নায়ুতন্ত্রের ব্যথা নিরাময়ে কাজ করে। হজম ও পাকস্থলীর সমস্যাও দূর করতে কাজ করে পুদিনা পাতা।

৬. লবণ
ব্যথা তাড়াতে লবণ খেতে হবে না। তবে একে বেশ কাজে লাগানো যায়। ১০-১৫ টেবিল চামচ লবণ গোসলের পানিতে মিশিয়ে নিন। সেই পানিতে গোসল করুন ১৫ মিনিট ধরে। এতে কোষের বাড়তি পানি ঝরে যায়। ফলে প্রদাহ ও ব্যথা কমে আসে।

৭. সয়
এক গবেষণায় বলা হয়, সয়ের প্রোটিন ব্যথা কমাতে কাজ করে। আরথ্রাইটিসে বেশ উপকার করে সয় বিন। অস্টিয়আরথ্রাইটিসের লক্ষণ থেকে মুক্তি মেলে। এতে আছে আইসোফ্লাভোনেস নামের এক উপাদান যা প্রদাহ থেকেও মুক্তি দেয়।

৮. দই
পেটের ব্যথা নিরসনে দই বেশ উপকারী। এটি অন্ত্রে স্বাস্থ্যকর ব্যাকটেরিয়ার সমাবেশ ঘটায়। এতে ব্যথা চলে যায়। দই হজমেও বেশ উপকারি। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

 


মন্তব্য