kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চারু ও কারুকলা

প্রথম ৫ অধ্যায় থেকে ১টি করে প্রশ্ন থাকে

১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



প্রথম ৫ অধ্যায় থেকে ১টি করে প্রশ্ন থাকে

বইয়ে মোট অধ্যায় ৭টি। রচনামূলক বা লিখিত প্রশ্নের জন্য প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ও সপ্তম অধ্যায়ের প্রশ্নগুলো ভালোভাবে দেখবে।

বিশেষ করে, ১ থেকে ৫ পর্যন্ত অধ্যায়গুলো থেকে একটি করে প্রশ্ন থাকবে।

বহু নির্বাচনী অংশে ১৫টি প্রশ্ন থাকবে। এর জন্য প্রতিটি অধ্যায় খেয়াল করে পড়বে, অনুশীলনীর বহু নির্বাচনী প্রশ্নগুলো চর্চা করবে। গুরুত্বপূর্ণ তথ্য, লাইন বা টপিকগুলো খাতায় লিখে রাখবে কিংবা বইয়ে দাগ দিয়ে রাখবে, যাতে পরীক্ষার আগের রাতে সবগুলোয় চোখ বোলানো যায়।

এ-প্লাস পেতে হলে তত্ত্বীয় অংশে ২৫ নম্বরের মধ্যে অবশ্যই ২৩-২৪ তোলার জন্য প্রস্তুতি থাকতে হবে। নকশা আঁকার ক্ষেত্রে জ্যামিত্যিক নকশা আঁকাটাই ভালো।

যারা ছবি আঁকায় দুর্বল, তারা পরীক্ষার আগে থেকেই একটি সুন্দর জ্যামিতিক নকশা বারবার চর্চা করবে। নকশায় কালো রং (পেনসিল বা অন্য কোনো রং ব্যবহার করবে না) লাগানোর আগে নকশার লাইনগুলো জেল পেন দিয়ে সাবধানে এঁকে নিলে ভালো হয়। গাঢ় ও নিখুঁত করে নকশায় রং লাগাবে, তবে খাতা যেন পরিচ্ছন্ন থাকে। ছবি ও নকশা লিখিত পরীক্ষার খাতায় আঁকতে হবে, তাই জল রং বা পোস্টার রং ব্যবহার করা যাবে না।

ছবির ক্ষেত্রে প্যাস্টেল এবং পেনসিল রং, নকশার জন্য সাইনপেন বা মার্কার অথবা গ্লাস মার্কার ব্যবহার করবে। যে পৃষ্ঠায় ছবি ও নকশা আঁকবে, তার উল্টো পৃষ্ঠা খালি রাখবে।

ছবি আঁকার ক্ষেত্রে বিভিন্ন ঋতু, গ্রামীণ জীবনযাত্রা, আমাদের মুক্তিযুদ্ধ, ভাষা আন্দোলন, বিভিন্ন উৎসব ইত্যাদি বিষয় নিয়ে ছবি আঁকা অনুশীলন করবে। বিশেষ করে, ঋতু ও গ্রামীণ দৃশ্য আঁকার চেষ্টা করবে। খুব জটিল কোনো বিষয় নিয়ে ছবি না আঁকাই ভালো। যা আঁকবে, তা যেন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে রং লাগিয়ে শেষ করা যায়।

নকশা ও ছবিতে আঁকা ও রং করার জন্য আলাদা আলাদা নম্বর ভাগ করা আছে, তাই আঁকার পাশাপাশি অবশ্যই রং লাগাবে। প্রথমে তত্ত্বীয় অংশ ৪০ মিনিট, পরে নকশা ৩০ মিনিট এবং বাকি শেষ সময়টুকুতে ছবি আঁকবে। এভাবে পরিকল্পনা করে পরীক্ষা দিলে ভালো করতে পারবে।


মন্তব্য