kalerkantho


ভুল সবই ভুল

সালেমে ডাইনিদের পুড়িয়ে মারা হয়েছিল

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



সালেমে ডাইনিদের  পুড়িয়ে মারা হয়েছিল

সবাই সত্যি জানে—এমন অনেক কথা পরে যাচাই করে দেখা গেছে সেগুলো মিথ্যা। লিখেছেন আসমা নুসরাত

 

১৬৯২ সালের কথা। তত দিনে ইংল্যান্ড ও তার আমেরিকান কলোনিগুলোতে জীবন্ত মানুষ পুড়িয়ে মারা নিষিদ্ধ হয়েছে। কিন্তু সালেম ৩০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে ডাইনি পুড়িয়ে মারার দায় বহন করে চলেছে। সালেম আমেরিকার নিউ ইংল্যান্ডের ম্যাসাচুসেটসের একটি গ্রাম। ফেব্রুয়ারিতে এলিজাবেথ ও আবিগেইল নামের ৯ ও ১১ বছর বয়সের দুটি মেয়ে হিস্টেরিয়ায় আক্রান্ত হয়। স্থানীয় ডাক্তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বললেন, ডাইনি তাদের জাদু করেছে।

সারাহ অসবর্ন নামের এক বৃদ্ধা আর বার্বাডোস থেকে নিয়ে আসা টিটুবা ও প্যারিস নামের দুই দাসীকে স্থানীয় ম্যাজিস্ট্রেট ডাইনি বলে সাব্যস্ত করলেন। একপর্যায়ে সালেমের আরো মেয়েরা মানসিক ও শারীরিক বিকারের শিকার হলে এলাকার গভর্নর সালেম উইচ ট্রায়ালের (সালেমের ডাইনি বিচার) ব্যবস্থা করেন। পরের এক বছরের মধ্যে প্রায় ২০০ নারী, পুরুষ ও শিশুকে বিচারের আওতায় আনা হয়। শেষে ২০ জনকে ফাঁসিতে ঝোলানো হয়। তবে এটা ঠিক, মধ্যযুগের ইউরোপে ডাইনি আখ্যা দিয়ে অনেক মানুষকে পুড়িয়ে মারা হয়েছে। কিন্তু সালেমে একজনকেও পুড়িয়ে মারা হয়নি।

উল্লেখ্য, বিশ শতকের মাঝামাঝিতে সালেম ট্রায়াল আবার আলোচনায় আসে নাট্যকার আর্থার মিলারের দ্য ক্রুসিবল (১৯৫৩) নাটকের মধ্য দিয়ে। ওই সময় আমেরিকায় সিনেটর জোসেফ ম্যাকার্থি ও তার দল কমিউনিস্টদের নানাভাবে হেনস্তা করছিলেন। মিলার ব্যাপারটিকে সালেমের উইচ হান্টের সঙ্গে তুলনা করেছেন।

 

 



মন্তব্য