kalerkantho


ভুল সবই ভুল

পৃথিবীর সবচেয়ে পুরনো সংসদ ইংল্যান্ডের

৩ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



পৃথিবীর সবচেয়ে পুরনো সংসদ ইংল্যান্ডের

সেকালে আলথিং বুঝি এভাবেই বসত!

সবাই সত্যি জানে—এমন অনেক কথা পরে যাচাই করে দেখা গেছে সেগুলো মিথ্যা। লিখেছেন আসমা নুসরাত

আসলে সবচেয়ে পুরনো সংসদ বা আইন প্রণয়নকারী সংস্থার দাবিদার আইসল্যান্ড। আইসল্যান্ডের সংসদ আলথিং চালু হয়েছিল ৯৩০ খ্রিস্টাব্দে। পরের ৩৩২ বছর স্বাধীনই ছিল আইসল্যান্ডের সংসদ। ১২৬২ সালে আইসল্যান্ডাররা নরওয়ের রাজার অধীন হয়। রাজার অধীনে থেকেও ১৮০০ সাল পর্যন্ত থিংভ্যাল্লিরেই বসত আলথিং। পরে সংসদ স্থানান্তরিত হয় রেকজাভিকে।  রেকজাভিক থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে থিংভ্যাল্লির। এখন এটি একটি ন্যাশনাল পার্ক। পিটার ইভানস নামের এক গবেষক দেখতে গিয়েছিলেন আলথিং কেমন ছিল? তিনি বলছেন, আলথিং মানে আইসল্যান্ডের পার্লামেন্ট বসত বছরে একবার। থিংভ্যাল্লিরের সমতল ভূমিতে। থিংভ্যাল্লিরে কোনো স্থায়ী কাঠামো ছিল না। দলপতিরা তাঁদের অনুসারীদের নিয়ে জমায়েত হতেন। তাঁবু গেড়ে থাকতেন। সবাই মিলে পরামর্শ করে আইন তৈরি করতেন।

ওদিকে ইংল্যান্ডের পার্লামেন্ট বিষয়ক আলোচনা শুরুই হয় ১২৫৮ সালে (উল্লেখ্য, ম্যাগনাকার্টা স্বাক্ষরিত হয়েছিল ১২১৫ সালে। রাজা ও বিদ্রোহী ব্যারনদের মধ্যে এটি ছিল একটি শান্তি চুক্তি)। রাজার একক কর্তৃত্ব খর্ব করার জন্য ১২৫৮ সালে একটি পরামর্শক দল নিয়োগ করা হয়েছিল।  তারপর অষ্টম হেনরির (১৪৯১-১৫৪৭) অধীনে ইংল্যান্ডে আইন প্রণয়নকারী সংস্থা চালু হওয়ার কথাও তোলা হয়। কিন্তু সে সংসদ স্বাধীন ছিল না। কারণ রাজার ইচ্ছার বাইরে যারা গিয়েছে তাদের কাউকে কাউকে মৃতও পাওয়া গেছে। কম শাস্তি বলতে ছিল জেলে যাওয়া। তারপর ১৭০৭ সালের কথাও বলা হয়। স্কটল্যান্ডকে তখন ইংল্যান্ড আর ওয়েলসের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তখনকার সংসদের চরিত্রও অষ্টম হেনরির আমলের চেয়ে আলাদা কিছু ছিল না। বস্তুত ১৯১১ সালে ইংল্যান্ডে গণতন্ত্র চালু হয়েছিল। সেবার হাউস অব লর্ডস ভেটো প্রদানের ক্ষমতা হারিয়েছিল।

সত্যিকারের আধুনিক গণতন্ত্রের সূচনা করেছিল ফিনল্যান্ড ১৯০৬ সালে। ফিনল্যান্ড তখন বর্ণ ও লিঙ্গের বৈষম্য ঘুচিয়ে সবার ভোটাধিকার চালু করেছিল। তবে ‘জনগণের শাসন’ কথাটি চালু করেছিল কিন্তু প্রাচীন গ্রিকরাই।

 

 

 

 

 

 

 

 

 



মন্তব্য