kalerkantho


ফেসবুক থেকে পাওয়া

ক্ষমা করে দিস বন্ধু

৪ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ক্ষমা করে দিস বন্ধু

হাটবোয়ালিয়া থেকে গাংনী ১২ কিলোমিটার। আজ থেকে পাঁচ বছর আগে প্রতিদিন আমি আর আমার বন্ধু সোহাগ বাসে চেপে এই রাস্তা দিয়ে স্কুলে যেতাম।

মাঝ রাস্তায় একটি বৃদ্ধাশ্রমের নির্মাণ কাজ চলছিল। আমি ওকে রাগানোর জন্য একদিন বললাম, ‘তোর বাবা বুড়ো হলে এখানে রেখে যাস। ’ ও রাগল না, বরং আমাকেও একই কথা বলল। এরপর প্রতিদিন যে আগে এটা বলতে পারবে তাকে ছুটির পর খাওয়াতে হবে বলে চুক্তি হলো। এভাবে তিনটি বছর চলে গেল। দুজনে ভিন্ন কলেজে ভর্তি হলাম। আমি যশোরে আর ও গ্রামেই।

প্রথম বর্ষের পরীক্ষার সময় জানলাম ওর বাবা স্ট্রোক করে মারা গেছে। খুব কষ্ট পেয়েছিলাম ওই দিন; কিন্তু পরীক্ষার কারণে শেষ দেখা হয়নি।

পরীক্ষা শেষে বাসায় ফিরে ওকে নিয়ে ঘুরতে বের হলাম। পথে সেই বৃদ্ধাশ্রমটা দেখে মুখ ফসকে বলেই ফেললাম, তোর বাবাকে এখানে রেখে যাস। ও আমার দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে ছিল সেদিন। নিজের ভুল বুঝতে পারলাম। মনে খুব অপরাধবোধ কাজ করছিল। ওকে জাপটে ধরলাম। কানের কাছে ঠোঁট নিয়ে গিয়েও বলতে পারলাম না, ‘দোস্ত, তোকে অনেক ভালোবাসি, আমাকে ক্ষমা করে দিস। ’

 

আল সানি, সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা


মন্তব্য